আজকাল ওয়েবডেস্ক: কেউ ঠেকে শেখে, কেউ দেখে শেখে। বাংলাদেশ দেখেই শিক্ষা নিল। ভারতে তবলিঘি জামাতের জন্য যেভাবে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ল তা দূর থেকে দেখেছে তারা। তাই মসজিদ ও উপাসনালয়ে না গিয়ে ঘরে বসে প্রার্থনার নির্দেশিকা জারি করেছে সরকার। এছাড়া করোনা আতঙ্কে বাংলাদেশে স্থগিত ইসলামিক ধর্মীয় সংগঠন তবলিঘি জামাতের ধর্মসভা বলে জানিয়েছেন মৌলানা জুবায়ের আহমেদের ছেলে হাফেজ মৌলানা মহম্মদ হানজালা।
এদিন বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে করোনাভাইরাসের সামাজিক সংক্রমণ রুখতে সাধারণ নাগরিকদের ধর্মীয় স্থানে না গিয়ে ঘরে বসেই প্রার্থনা করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। মসজিদে জামাত চালু রাখার প্রয়োজন হলে প্রতি ওয়াক্তে খতিব, ইমাম, মুয়াজ্জিন, খাদেম–সহ সর্বোচ্চ ৫জন এবং জুম্মার নমাজে সর্বোচ্চ ১০ জন শরিক হতে পারবেন। অন্যান্য ধর্মাবলম্বীদের ক্ষেত্রেও একই নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।
বাংলাদেশ সরকারের উপসচিব মহম্মদ সাখাওয়াত হোসেন বিজ্ঞপ্তি জারি করে জানিয়েছেন, গত ২৯ মার্চ ইসলামিক ফাউন্ডেশনের ডাকে দেশের শীর্ষস্থানীয় আলেমরা মিলিত হয়ে মসজিদে উপস্থিতি সীমিত রাখার বিষয়ে সর্বসম্মত হন। জুম্মার নমাজে সীমিত আকারে উপস্থিতির বিষয়টি বারবার বলা হলেও কোন পরিবর্তন আসেনি। বাংলাদেশে করোনার সংক্রমণ দ্রুত বাড়ছে। তাই কোনও ধর্মীয় বা সামাজিক আচার–অনুষ্ঠান করা যাবে না। এক্ষেত্রে কোনও প্রতিষ্ঠান সরকারি নির্দেশ লঙ্ঘন করলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করতে বাধ্য হবে সরকার বলে জানানো হয়েছে।

জনপ্রিয়

Back To Top