আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ রাত তিনটের সময় বাগানে খেলছে ছেলেমেয়েরা। ভোর পাঁচটায় অফিস যাচ্ছেন বাড়ির বাবু। কাজের লোক কাজে আসছে রাত বারোটা, কখনও বা একটায়। সারাদিনের কাজের পর বাড়ির সবাই ঘুমোতে যাচ্ছেন বিকেল চারটের সময়। নরওয়ের পশ্চিম ট্রমসোর সোমরয় দ্বীপে চালু আছে এমনই আজব নিয়ম। যখন যা ইচ্ছা, তখন তা করছেন সেখানকার তিনশো জন বাসিন্দা। কোনও সময়ের ঝক্কি নেই। কারণ, বছরের ৬৯ দিন এখানে টানা সূর্যের আলো থাকে। আর সেইজন্যই এই অঞ্চলকে টাইম জোন ফ্রি ঘোষণা করার দাবি করেছেন ওই অঞ্চলের বাসিন্দারা। 
যুক্তিতে তাঁরা জানিয়েছেন, এখানে সারাক্ষণ সূর্যের আলো থাকে।

ফলে ২৪ ঘণ্টাই এখানে দিন। আর দিনের আলোয় যখন খুশি কাজ করা যায়। যদিও, গ্রিনিচের সময় মাফিক এখানে কর্মক্ষেত্রের কাজকর্ম করা হয়, তবু ইচ্ছা করলেই সেই কাজের সময়ও পাল্টে দেওয়া সম্ভব। মানুষ এর ফলে আরও স্বাধীন জীবন যাপন করতে পারবেন। যেহেতু সূর্যের আলো থাকছেই, তাই দিন রাতের ফারাক ভুলে এখানে সময়ের ধারণাকেই তুলে দেওয়া কথা বলছেন বাসিন্দারা। 
‘‌নিশীথ সূর্যের দেশ’‌ বলে পরিচিত নরওয়ের সর্বত্র এমন ভাবে ‘‌সুয্যি মামা’ জেগে থাকেন না। এই অংশ যেন আড়াই মাস কেবল খেলে বেড়ানোই তাঁর স্বভাব। তাই মানুষকেও যখন ঘুমোতে হয় পর্দা টেনে, জোর করে ঘর অন্ধকার করে ঘুমোতে হয়। বাইরে তো সারাদিন, খটখটে রোদ। ‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top