আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ চন্দ্রপৃষ্ঠে অবতরণ স্থলের মাত্র ২.‌১ কিলোমিটার দূরেই ইসরোর গ্রাউন্ড স্টেশনের সঙ্গে সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায় বিক্রম ল্যান্ডারের। সাফল্যের এতো কাছে পৌঁছে এভাবে অভিযান অসম্পূর্ণ থেকে যাওয়ায় স্বাভাবিকভাবেই হতাশ ইসরোর বিজ্ঞানীরা। প্রধানমন্ত্রীর সান্ত্বানাবাক্য শুনে কেঁদে ফেলেন ইসরোপ্রধান কে সিবন। যদিও রাজনৈতিক মহল, হোক বা ক্রীড়াজগত বা শিল্পমহল সবাই ইসরোকে অভিনন্দন জানিয়েছে।
কিন্তু ভারতের প্রতিবেশী পাকিস্তান আছে তাদের নিজেদের মতোই। পাকিস্তানের বিজ্ঞানমন্ত্রী ফাওয়াদ চৌধুরি শনিবার ভোররাতেই টুইট পোস্টে ইসরো তথা ভারতকে ঠুকে লিখেছেন, ‘‌যে কাজটা আসে না সেটা নিয়ে জোর করা উচিত নয়’‌। ভারতকে ইন্ডিয়া লেখার বদলে ফাওয়াদ লিখেছেন ‘‌ডিয়ার এন্ডিয়া।’‌
ফাওয়াদকে কটাক্ষ করে সোশ্যাল মিডিয়ায় কয়েক মুহূর্তে ৮৮০০টি কমেন্ট করে নেটিজেনরা। পাকিস্তানেও অনেক বিবেকসম্পন্ন মানুষ তাঁদের বিজ্ঞানমন্ত্রীর সমালোচনা করে এবং ভারতের পাশে দাঁড়িয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় লিখেছেন, ‘‌আমাদের অস্বস্তির কারণ হবেন না আপনি। অন্তত ভারত চাঁদে পা রাখার চেষ্টা করেছে। যেখানে আমরা সেটাকে দেখার জন্যও মারপিট করি। আমাদের উচিত যে কোনও দেশের বৈজ্ঞানিক কাজকে সমর্থন করে তা থেকে অনুপ্রেরণা নেওয়া।’
ফাওয়াদ অবশ্য দমে না গিয়ে চন্দ্রাভিযানের ব্যয়ের প্রসঙ্গ উল্লেখ করে ইসরোর বিজ্ঞানীদের কঠোর সমালোচনা করেছেন। টুইটারে তিনি লিখেছেন,‘‌ভারতীয়রা এমনভাবে আমাকে কটাক্ষ করছে যেন আমিই ওই অভিযান ব্যর্থ করেছি। আমি কি বলেছিলাম যে ওই সব অপদার্থদের উপর ৯০০ কোটি টাকা খরচ কর। এখন অপেক্ষা কর আর শোয়ার চেষ্টা কর। চাঁদের বদলে মুম্বইয়ে নেমেছে ওই খেলনাটা।’‌ শুধু ইসরোর বিজ্ঞানীদের সমালোচনাই নয়, মোদিকেও কটাক্ষ করে ফাওয়াদ লিখেছেন, ‘‌মোদিজি উপগ্রহ সংযোগ নিয়ে ভাষণ দিয়েছেন, কারণ তিনি তো আসলে একজন নভশ্চর, রাজনীতিক নন। লোকসভার উচিত ওনাকে জিজ্ঞেস করা কেন একটা গরিব দেশের ৯০০ কোটি টাকা এভাবে খরচ করা হল।’‌
শনিবার ইসরোর মিশন কন্ট্রোল রুম বা এমসিআর–এ ইসরোর চন্দ্রযান–২ দলের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর উপস্থিতি নিয়েও পাকিস্তানের কয়েকজন কটাক্ষ করেছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। অথচ মহাকাশ মন্ত্রক তাঁর অধীনস্থ হওয়ায় এবং প্রধানমন্ত্রী হিসেবে সেখানে থাকার পূর্ণ অধিকার রয়েছে মোদির। চন্দ্রযান–২–র জন্য ৯০০ কোটি টাকা খরচ নিয়েও পাক মন্ত্রীকে ঠুকে সোশ্যাল মিডিয়ায় নেটিজেনরা লিখেছে, ‘‌চন্দ্রযান এখনও চাঁদকে প্রদক্ষিণ করছে। শুধু রোভারের সংযোগ ছিন্ন হয়েছে। আপনাদের গুরু আমেরিকা বা রাশিয়ারও এক্ষেত্রে মাত্র ৫০ শতাংশই সাফল্য আছে। সেখানে ইসরোর সাফল্যের হার অনেক বেশি। আর আমরা যে ৯০০ কোটি টাকা খরচ করেছি সেটা আপনাদের বার্ষিক বাজেটের এক চতুর্থাংশ, যেটুকুও আপনারা ধার করে আনেন।’‌
বিক্রম ল্যান্ডার নিয়ে যে আবা ভারত–পাকিস্তান বাকযুদ্ধ শুরু হয়েছে তা বলার অপেক্ষা রাখে না।
ছবি:‌ টাইমস্‌ নাও    ‌         

জনপ্রিয়

Back To Top