আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ ভারত–পাকিস্তানের মধ্যে সরাসরি আলোচনা হলে সীমান্তে উত্তেজনা হয়ত কমত। কিন্তু পাকিস্তান আন্তঃসীমান্ত সন্ত্রাসবাদে মদত দেয় বলেই আলোচনায় বসা সম্ভব হচ্ছে না। সিমলা চুক্তি অনুসারে সরাসরি বৈঠকে বসে এই উত্তেজনাকর পরিস্থিতি থেকে বেরিয়ে আসার জন্যে সমাধানের রাস্তা খুঁজুক ভারত–পাকিস্তান এমনটাই চাইছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। আমেরিকার বিদেশ দপ্তরের কার্যনির্বাহী সচিব অ্যালিস জি ওয়েলস এক রিপোর্টে বলেন, ‘‌আমরা মনে করি ১৯৭২ সালের চুক্তি অনুযায়ী ভারত–পাকিস্তান যদি সরাসরি আলোচনায় বসে তাহলে উত্তেজনা কমতে পারে। কিন্তু পাকিস্তান সন্ত্রাসবাদে মদত দেয়। আলোচনায় বসার পক্ষে প্রধান বাধা সেটাই।’‌ এই মন্তব্যের পর থেকে পরিস্কার ভারতের দাবি সঠিক। 
ভারতের পক্ষ থেকে একাধিকবার বলা হয়েছে, পাকিস্তান সন্ত্রাসবাদে মদত দেওয়া বন্ধ না করলে তাদের সঙ্গে আলোচনায় বসা সম্ভব নয়। এবার আমেরিকাও কার্যত সেই অবস্থানকেই সিলমোহর দিল। এই বিষয়ে অ্যালিস জি ওয়েলস বলেন, ‘‌কার্যকরী দ্বিপাক্ষিক আলোচনার জন্য দুই দেশের মধ্যে আস্থার সম্পর্ক গড়ে তোলা গড়ে দরকার এবং এক্ষেত্রে আন্তঃসীমান্ত সন্ত্রাসে জড়িত গোষ্ঠীগুলিকে যেভাবে পাকিস্তান সমর্থন জুগিয়ে যাচ্ছে সেটাই বৈঠকের ক্ষেত্রে প্রধান বাধা হয়ে দাঁড়াচ্ছে।’‌
পাকিস্তানের প্রসঙ্গে রিপোর্টে বলা হয়েছে, প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বলছেন, যারা কাশ্মীরে হিংসা ছড়ায় তারা কাশ্মীর এবং পাকিস্তান– দু’দেশেরই শত্রু। আমরা এই বক্তব্যকে স্বাগত জানাই। এরপর সরাসরি ইসলামাবাদকে দোষারোপ করে বলা হয়েছে, ‘‌তারা লস্কর–ই–তৈবা, জৈশ–ই–মহম্মদের মতো জঙ্গি গোষ্ঠীকে মদত দেয়। তাই নিয়ন্ত্রণরেখায় শান্তি বিঘ্নিত হয়। এর দায় পাকিস্তান সরকারকেই নিতে হবে।’‌

জনপ্রিয়

Back To Top