আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ চাঁদে জল রয়েছে তো বটেই। বরং আগে যা ভাবা হয়েছিল, তার থেকে একটু বেশিই রয়েছে। দেখে দারুণ খুশি নাসার বিজ্ঞানীরা। তাঁদের আশা,জ্বালানিও মিলতে পারে চাঁদে। সেক্ষেত্রে ওখানে বিজ্ঞানীদের জীবনধারণ অনেক সহজ হয়ে উঠবে।
এক দশক আগেও মনে করা হত, চাঁদ শুষ্ক। সেখানে এক বিন্দুও জল নেই। ক্রমে একের পর এক মহাকাশ অভিযান, উন্নত মানের উপগ্রহচিত্র সে ধারণা ভেঙেছে। সোমবার নেচার অ্যাস্ট্রোনমিতে দু’‌টি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে। তাতেই বলা হয়েছে, যতটা আশা করা হয়েছিল, তার বেশিই জল রয়েছে চাঁদে। 
এর আগে গবেষণায় দেখা গেছিল চাঁদের পৃষ্ঠে জল রয়েছে। কিন্তু সেটি জল (‌H2O)‌ নাকি হাইড্রক্সিল তা বোঝা যায়নি। হাইড্রক্সিল হল একটি হাইড্রোজেন পরমাণু এবং একটি অক্সিজেন পরমাণু দিয়ে তৈরি অণু। কিন্তু নতুন গবেষণা বলছে, চাঁদের বুকে আণবিক জলই রয়েছে। যেই পৃষ্ঠে সূর্যের আলো এসে পৌঁছয়, সেখানেও রয়েছে এই জল।
স্ট্র‌্যাটোসফেরিক অবজারভেটরি ফর ইনফ্রেয়ারড অ্যাস্ট্রোনমি (‌সোফিয়া)‌ টেলিস্কোপে ধরা পড়ে ছবির তথ্য থেকে এই সিদ্ধান্তে পৌঁছেছেন বিজ্ঞানীরা। প্রতিবেদনের লেখক কাসি হনিবলের মতে, এই জল পানীয় হিসেবে ব্যবহার করা যেতে পারে। অক্সিজেন জোগাতে পারে বা জ্বালানি হিসেবেও ব্যবহৃত হতে পারে। 
এর আগে ২০০৯ সালে চাঁদের দক্ষিণ মেরুতে জলকণার খোঁজ পেয়েছিলেন নাসার বিজ্ঞানীরা। তাঁদের লক্ষ্য, চাঁদে মহাকাশ গবেষণা কেন্দ্র খোলা। নতুন গবেষণায় পাওয়া এই জল সেকাজে অনেকটাই সাহায্য করবে। 

জনপ্রিয়

Back To Top