আজকাল ওয়েবডেস্ক: আপাতত মাথার মুকুট খুলে রেখে গলায় স্টেথো ঝুলিয়ে নিয়েছেন তিনি। তিনি ২৪ বছরের বঙ্গতনয়া। প্রবাসী বাঙালি যদিও। তবে প্রমাণ করে দিলেন, যে রাঁধে সে চুলও বাঁধে। ভাষা মুখোপাধ্যায়, করোনা আক্রান্তদের জন্য এবার মাঠে নেমে পড়লেন। ভাষার জন্ম ভারতে। ৯ বছর বয়সে ব্রিটেন চলে যান তিনি। স্কুল শেষ করার পরে পড়ার পাশাপাশি মডেলিং শুরু করেছিলেন। ডাক্তারি পড়ার মাঝপথেই প্রথম সৌন্দর্য প্রতিযোগিতায় যোগ দেন। চলতি বছরের অগাস্ট পর্যন্ত তিনি করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসা করবেন। তাঁর কথায়, 'আমাকে আফ্রিকায় আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল৷ সেখান থেকে তুরস্ক, ভারত, পাকিস্তান-সহ এশিয়ার একাধিক দেশে আমন্ত্রিত ছিলাম আমি৷ বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসাডর হিসেবে চিকিৎসা করছি করোনা রোগীদের৷' 
ইংল্যান্ডের সেরা সুন্দরীর শিরোপা তিনি পেয়েছিলেন ২০১৯ সালে। খেতাব জয়ের পর লিঙ্কনশায়ারের হাসপাতালে জুনিয়র ডাক্তার হিসেবে যোগও দেন ভাষা। এ বছর মার্চের শুরুতে তিনি ভারতে এসেছিলেন৷ বিভিন্ন স্কুলে আর্থিক সাহায্য করেন৷ অনাথ শিশুকন্যাদের শেল্টারের ব্যবস্থা করতে টাকা দেন৷ কিন্তু ব্রিটেনে করোনা ভাইরাস পরিস্থিতি খারাপ হতে শুরু করায়, পূর্ব ইংল্যান্ডের একটি হাসপাতাল থেকে তাঁর প্রাক্তন সহকর্মী তাঁকে মেসেজ করে জানান, দ্রুত ফিরে এসে করোনা রোগীদের সারিয়ে তুলতে হবে৷ এক মুহূর্তও ভাবেননি ভাষা৷ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে জানান, তিনি ফিরতে চান৷ একজন ডাক্তার হিসেবে তিনি আক্রান্তদের চিকিৎসা করবেন৷ বিশ্বজুড়ে করোনা আতঙ্কের মাঝেই তাই আপাতত মডেলিং থেকে পুরোপুরি বেরিয়ে এসে ডাক্তারি শুরু করেছেন তিনি৷ ভাষা মুখোপাধ্যায়ের ইংরেজি, বাংলা, হিন্দি, জার্মান, ফরাসি ভাষা অত্যন্ত সাবলীল৷ ইউনিভার্সিটি অব নটিংহ্যাম থেকে চিকিৎসাবিজ্ঞানে স্নাতক হয়ে রেসপিরেটারি মেডিসিনের উপর স্পেশালাইজেশন করেন তিনি। ভাষা মিস ওয়ার্ল্ড প্রতিযোগিতাতেও ইংল্যান্ডের হয়ে প্রতিনিধিত্ব করেছিলেন৷ সেরা সুন্দরী ভাষা মুখোপাধ্যায় আপাতত ডাক্তার হয়ে দিনরাত পরিশ্রম করে করোনা রোগীদের সারিয়ে তোলার চেষ্টা করছেন৷

জনপ্রিয়

Back To Top