আজকাল ওয়েবডেস্ক:  একদমই যাকে বলে অতি সাধারণ স্তর থেকে হঠাৎ করেই পাদপ্রদীপের আলোয় চলে আসা। ফ্রান্সের পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী হতে চলা জন কাসটেক্সের জীবন অনেকটাই সেরকম। এলিসি প্যালেসের সূত্র অনুযায়ী, শুক্রবার সকালে এডোয়ার্ড ফিলিপের পদত্যাগের পর সরকারি অফিসার জন কাসটেক্সকেই পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী হিসেবে বাছেন প্রেসিডেন্ট ইম্যানুয়েল ম্যাক্রোঁ।
কূটনীতিকদের একাংশের মতে, মহামারীর জেরে জারি হওয়া লকডাউনের পর ফ্রান্সের অর্থনীতিকে ধীরে ধীরে সফলভাবে তুলে ধরার যে কাজ করেছেন কাসটেক্স, সেটার পুরস্কার পেলেন তিনি। কারণ, লকডাউনের পরবর্তী ইওরোপে ফ্রান্সের সাফল্য অন্যান্য দেশের থেকে চোখে পড়ার মতো। সেই কাজের ফলে স্বাভাবিকভাবেই প্রেসিডেন্টের অত্যন্ত আস্থাভাজন হয়ে উঠেছিলেন ৫৫ বছরের কাসটেক্স। তাই মন্ত্রিসভা রদবদলের সঙ্গে সঙ্গে নতুন প্রধানমন্ত্রীর নামও ঘোষণা করলেন তিনি। এবছর ম্যাক্রোঁ সরকারের তিন বছর পূর্ণ হচ্ছে।
কিন্তু কূটনীতিকদের আরেকটি অংশ মনে করছে, তিন বছর আগে যেভাবে বিপুল জনসমর্থন পেয়ে প্রেসিডেন্ট হয়েছিলেন ম্যাক্রোঁ। গত তিন বছরে ফরাসিদের চোখে নিজের সেই ভাবমূর্তি অনেকটাই হারিয়ে ফেলেছেন তিনি। এডোয়ার্ড ফিলিপের প্রায় আকাশছোঁয়া জনপ্রিয়তার তুলনায় তাঁর জনপ্রিয়তা অত্যন্ত কম। আর তাই ফিলিপকে ছেঁটে ফেলে, দুঁদে রাজনীতিকদের থেকে একদমই ভিন্ন স্তর থেকে তুলে এনে কাসটেক্সকে প্রধানমন্ত্রী ঘোষণা করে মন্ত্রিসভায় ফের নিজের দখল প্রতিষ্ঠা করতে চাইছেন ম্যাক্রোঁ। এডোয়ার্ড ফিলিপ রবিবার স্থানীয় নির্বাচনে জিতলে লি হার্ভের মেয়র পদে শপথ নিতে পারেন।

জনপ্রিয়

Back To Top