আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ দিনের পর দিন খেতে দেননি। তার জেরে ২৪ বছরের ওই মহিলার ওজন হয়েছিল ২৪ কেজি। সঙ্গে চলত অকথ্য মারধর। ঘুষি, লাথি। সহ্য করতে না পেরে মারাই গেলেন মায়ানমার থেকে কাজ করতে আসা ওই পরিচারিকা। আর এসবের নেপথ্যে রয়েছে এক ভারতীয় বংশোদ্ভুত মহিলা। তাকে দোষী সাব্যস্ত করা হয়েছে। শাস্তি হিসেবে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড হতে পারে তার।
মৃতের নাম পিয়াং গাই ডন। মায়ানমার থেকে এসেছিলেন। তরুণীর পরিবার অত্যন্ত অভাবী। তিন বছরের ছেলের ভরণপোষণের জন্যই সিঙ্গাপুরে এসেছিলেন ২০১৫ সালে। পাঁচ মাস আগে গায়ত্রী মুরুগায়ানের বাড়িতে কাজ করতে আসেন। সেই থেকে চলছে অত্যাচার। সারাদিন হাড়ভাঙা খাটুনি। সেই সঙ্গে ঘুষি, লাথি। এমনকী পিয়াংকে খেতেও দিত না গায়ত্রী। 
গায়ত্রীর বাড়িতে সিসিটিভি ক্যামেরা বসানো ছিল। তাতে দেখা গেছে, মৃত্যুর আগে ৩৫ দিন অমানুষিক অত্যাচার করা হয়েছে তাঁকে। শেষ ক’‌দিন রাতে গলায় দড়ি দিয়ে জানলার গ্রিলের সঙ্গে বেঁধে রাখা হয়েছিল। যাতে ডাস্টবিন থেকে খাবার খুঁটে খেতে না পারেন তিনি। শেষ পর্যন্ত মাথায় আঘাত লেগে মৃত্যু হয়েছে তাঁর। ময়নাতদন্তের রিপোর্টে এমনটাই দেখা গিয়েছে। রিপোর্টে বলা হয়েছে, পিয়াংয়ের শরীরে ৩১টি ক্ষত রয়েছে।
গায়ত্রীর বিরুদ্ধে ২৮টি চার্জ আনা হয়েছে। তার যাবজ্জীবন শাস্তি হতে পারে। 

জনপ্রিয়

Back To Top