‌সংবাদ সংস্থা
নোভেল করোনা ভাইরাসের আঁতুড়ঘর উহান থেকে ভারতীয়দের ফেরানোর বিমানকে ছাড়পত্র দিতে ইচ্ছাকৃত ভাবে গড়িমসি করছে চীন, এমনই অভিযোগ করেছে একটি সূত্র। উহানে এখনও আটকে আছেন অনেক ভারতীয়। তাঁদের ফেরাতে বায়ুসেনার সি–১৭ গ্লোবমাস্টার বিমান উহানে পাঠানোর প্রস্তাব দিয়েছিল ভারত। সূত্রের দাবি, চীনের অনুমতি না মেলায় বিমানটি রওনা হতে পারেনি। 
দু’‌দফায় উহান থেকে ৬৪৭ জন ভারতীয়কে ফেরানো হয়েছে। এখনও অনেক ভারতীয় সেখানে রয়েছেন। তাঁদের ফেরাতে তৎপর কেন্দ্র। ১৭ ফেব্রুয়ারি কেন্দ্র জানিয়েছিল, ‘‌বায়ুসেনার সবচেয়ে বড় বিমান সি–১৭ গ্লোবমাস্টার চিকিৎসার সরঞ্জাম নিয়ে চীনের উহানের উদ্দেশে রওনা হবে। উহানে আটকে থাকা ভারতীয়দের নিয়ে আসবে বিমানটি। স্থির ছিল ২০ ফেব্রুয়ারি বায়ুসেনার বিমানটি রওনা হবে। কিন্তু সূত্রের দাবি, ভারতীয় বিমানকে প্রবেশের অনুমতি দিতে টালবাহানা করছে বেজিং। অথচ ফ্রান্স–সহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের বিমান ত্রাণসামগ্রী নিয়ে চীনে যাচ্ছে। নিজেদের দেশের লোকজনকে সেখান থেকে ফিরিয়ে আনছে। এক্ষেত্রে তা হলে চীন সরকার অনুমতি দিতে দেরি করছে কেন?‌ চীন কি ভারতের সাহায্য নিতে চায় না?‌ উহান থেকে ভারতীয়দের ফেরানোয় বাধা দিচ্ছে কেন?‌ আর কেনই বা ভারতীয়দের মানসিক যন্ত্রণার মধ্যে রাখছে?‌ উহানে আটকে পড়া ভারতীয়রা দেশে ফেরার অপেক্ষায় রয়েছেন। তাঁদের পরিবারের লোকজন মারাত্মক উৎকণ্ঠায় আছেন।’‌
ভারতীয় বিমানকে ছাড়পত্র দিতে টালবাহানার কথা নাকচ করেছে চীন। শুক্রবার চীনের বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্র গেং শুয়াং বলেছেন, ‘৮০ জন আটকে আছেন। তাঁদের ফেরানোর পরিকল্পনা করেছে ভারত। এ বিষয়ে দু’‌দেশের সংশ্লিষ্ট দপ্তরের মধ্যে কথাবার্তা চলছে। বিমানকে ছাড়পত্র দিতে চীন দেরি করছে, ব্যাপারটা তেমন নয়। বিদেশিদের জীবন ও শরীরের দিকে চীনের নজর আছে।’‌
এদিকে করোনা সংক্রমণে মৃতের সংখ্যা হু হু করে বাড়ছে চীনে। এখনও পর্যন্ত সেখানে ২,৩৪৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। আক্রান্ত ৭৬,২৮৮। কদিন আগে উহানের এক মহিলা অনিয়াং বেড়াতে গিয়েছিলেন। ২০ বছর বয়সি মহিলার শরীরে করোনার উপসর্গ ধরা পড়েনি। কিন্তু তাঁর থেকেই করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন মহিলার পাঁচজন আত্মীয়। এই ঘটনা প্রকাশ পেয়েছে আমেরিকান মেডিক্যাল অ্যাসোসিয়েশন পত্রিকায়। করোনায় আক্রান্ত ব্যক্তি অসুস্থ না হয়ে থাকতে পারেন কিনা তা খতিয়ে দেখছেন বিজ্ঞানীরা।‌‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top