আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ ২০১৮–য় মুসলিম–বিরোধী হিংসায় কেঁপে উঠেছিল দ্বীপরাষ্ট্র শ্রীলঙ্কা। সেই ঘটনার প্রেক্ষিতে দুবছর পর ক্ষমা চাইল ফেসবুক। ওই ঘটনায় মানবাধিকার প্রভাবিত হয়েছিল বলে উল্লেখ করে ক্ষমাপ্রার্থনা বার্তায় তারা লিখেছে, ‘‌আমরা বুঝেছি এবং ক্ষমা চাইছি।’‌
শ্রীলঙ্কার মুসলিম অধ্যুষিত এলাকার ঘরবাড়ি, দোকানপাট সহ প্রচুর সম্পত্তি নষ্ট হয়েছিল। গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়েছিল বহু মসজিদ। প্রাণহানি হয়েছিল কয়েকজনের। সেসময় ফেসবুকে প্রচুর উস্কানিমূলক ভাষণ এবং ভুয়ো খবর, গুজব ছড়িয়েছিল, যাতে হিংসার আগুন দাবানলের আকার নেয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে শ্রীলঙ্কার তৎকালীন প্রেসিডেন্ট মৈত্রিপলা সিরিসেনা দেশে জরুরি অবস্থা জারি করেন এবং ফেসবুককে ষড়যন্ত্রকারী বলে চিহ্নিত দেশে নিষিদ্ধ ঘোষণা করেন।
‘‌আর্টিক্‌ল ওয়ান’‌ নামে একটি মানবাধিকার উপদেষ্টা সংগঠনকে দুবছরের আগের ওই ঘটনায় ফেসবুকের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগের তদন্তের দায়িত্ব দিয়েছিল ফেসবুক কোম্পানি। তদন্ত রিপোর্টে তারা জানিয়েছে, ফেসবুকে ছড়ানো গুজবের জন্য হিংসা ছড়িয়েছিল আরও বেশি। শ্রীলঙ্কাবাসী ফেসবুকের এই পদক্ষেপকে স্বাগত জানালেও কয়েকজনের মতে, দিগানা শহরে যে আগুন জ্বলেছিল, সেখানে ফেসবুক পরোক্ষ নজরদারের ভূমিকা নিলে হিংসা এতো মারাত্মক আকার ধারণ করত না।         

জনপ্রিয়

Back To Top