আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ এজলাসেই প্রাণ হারালেন মিশরের প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট মহম্মদ মোরসি। শুনানি চলাকালীন আদালতেই অসুস্থ হয়ে পড়েন তিনি। কোনও ব্যবস্থা নেওয়ার আগেই সংজ্ঞা হারিয়ে লুটিয়ে পড়েন তিনি। সেখানেই ৬৭ বছর বয়সে মৃত্যু হল ক্ষমতাচ্যুত ওই বিতর্কিত নেতার।
সংবাদ সংস্থা সূত্রে খবর, ইসলামিক মৌলবাদী সংগঠনের সঙ্গে যোগসাজশ এবং গুপ্তচরবৃত্তির অভিযোগ ছিল প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট মহম্মদ মোরসির বিরুদ্ধে। ওই মামলারই শুনানি চলছিল মিশরের রাজধানী কায়রোর একটি আদালতে। প্যালেস্তিনীয় জঙ্গি গোষ্ঠী হামাসের সঙ্গে মোরসির যোগ নিয়ে আইনজীবীদের তর্কাতর্কি তখন তুঙ্গে। শুনানির শেষে মিশরের প্রাক্তন প্রেসিডেন্টের জবানবন্দি নেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু হঠাৎ সংজ্ঞা হারিয়ে লুটিয়ে পড়েন মোরসি। তড়িঘড়ি চিকিৎসকের কাছে নিয়ে গেলেও শেষ রক্ষা করা যায়নি। মৃত্যু হয় এককালের দোর্দণ্ডপ্রতাপ একনায়ক তথা বিতর্কিত চরিত্র মহম্মদ মোরসির। মিশরের প্রথম গণতান্ত্রিকভবে নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট ছিলেন মোরসি।
উল্লেখ্য, ২০১০ সাল থেকে উত্তর আফ্রিকা এবং মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলিতে একনায়কতন্ত্রের বিরুদ্ধে গর্জে ওঠে জনতা। সোশ্যাল মিডিয়ার দৌলতে ছড়িয়ে পরে প্রবল সরকার বিরোধী বিক্ষোভ। প্রবল প্রতিষ্ঠান বিরোধী উত্তাপে ফুটতে থাকে মিশর। তাতে ২০১১ সালে গদি হারাতে হয় দেশটির চতুর্থ প্রেসিডেন্ট হুসনি মুবারককে। তারপরই ২০১২ সালে ক্ষমতায় আসেন বর্তমানে নিষিদ্ধ উগ্রপন্থী সংগঠন মুসলিম ব্রাদারহুডের নেতা মহম্মদ মোরসি। তবে পূর্বসূরীর মতোই সেদেশের সংবিধান সংশোধন করে অসীম ক্ষমতা নিজের কুক্ষিগত করেন তিনি। ফলে ফের শুরু হয় বিক্ষোভ, রাস্তায় নেমে পরে জনতা। অবশেষে সেনা অভ্যুত্থানের মধ্যে দিয়ে শেষ হয় মোরসির রাজনৈতিক জীবন। 
 

জনপ্রিয়

Back To Top