আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ নভজ্যোৎ সিং সিধুর পর এবার নয়া বিতর্কে শত্রুঘ্ন সিনহা। এবার তিনি পাকিস্তানে পৌঁছে গেলেন। ব্যক্তিগত সফরে পাকিস্তান গিয়েছেন বলে জানিয়েছে শত্রুঘ্ন ঘনিষ্ঠরা। বিজেপি ছেড়ে তিনি এখন কংগ্রেস নেতা। নভজ্যোৎ সিং সিধু পাকিস্তানের সেনা জেনারেলকে জড়িয়ে ধরে বিতর্ক তৈরি করেছিলেন। আর একটি বিয়ে বাড়িতে যোগ দিতে সেদেশে পৌঁছেছেন শত্রুঘ্ন সিনহা। এমনকী সেখানে গিয়েই সেদেশের রাষ্ট্রপতির সঙ্গে বৈঠকে বসেন এই কংগ্রেস নেতা। যা নিয়ে জের চর্চা শুরু হয়েছে। 
এই পরিস্থিতিতে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে, যেখানে দুই দেশের বাণিজ্যিক সম্পর্ক স্তব্ধ, ভারতীয় প্রধানমন্ত্রীর বিমান পাকিস্তানের আকাশপথ দিয়ে যেতে দেওয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে, সেখান এমন বৈঠক করলেন কী করে?‌ যদিও এই প্রশ্নের উত্তর মেলেনি। তবে সূত্রের খবর, পাকিস্তানে গিয়ে শত্রুঘ্ন সিনহা দেখা করেন পাকিস্তানের রাষ্ট্রপতি আরিফ আলভির সঙ্গে। আর ব্যক্তিগত সফরে গিয়ে এমন রাজনৈতিক সাক্ষাৎকার নিয়ে তুমুল ঝড় উঠতে শুরু করেছে।


সংবাদসংস্থা পিটিআই জানাচ্ছে, পাকিস্তানের রাষ্ট্রপতির সঙ্গে শত্রুঘ্নর আলোচনা হয়েছে কাশ্মীর প্রসঙ্গে। কাশ্মীর প্রসঙ্গে শান্তি স্থাপন দুই নেতার আলোচনায় জায়গা করে নেয়। তবে যেভাবে পুলওয়ামা থেকে কাশ্মীরে ৩৭০ ধারা বিলোপ নিয়ে পাকিস্তান আক্রমণাত্মক পদক্ষেপে এগোচ্ছে সেখানে এভাবে ব্যক্তিগত সফরে পাকিস্তান গিয়ে রাজনৈতিক আলোচনা বিপাকে ফেলতে পারে বলিউডের নায়ককে।
পাকিস্তানের রাষ্ট্রপতির সঙ্গে কাশ্মীর থেকে ৩৭০ ধারা তুলে নেওয়া প্রসঙ্গে আলোচনা করেছেন শত্রুঘ্ন। এই তথ্য নিজেই টুইটে জানান পাকিস্তানের রাষ্ট্রপতি। যদিও শত্রুঘ্ন টুইট করে জানিয়েছেন, ‘‌আমরা সামাজিক এবং সাংস্কৃতিক নানা বিষয়ে আলোচনা করেছি। তবে সেখানে কোনও রাজনীতির বিষয় ছিল না। আলোচনাও হয়নি। আমার বন্ধুরা, শুভাকাঙ্খীরা, সমর্থকরা এবং সংবাদমাধ্যম বুঝতে পারবে যে, দেশের নীতি, রাজনীতি নিয়ে বিদেশের মাটিতে সরকারের দ্বারা স্বীকৃত ব্যক্তিই আলোচনা করতে পারে।’‌ উল্লেখ্য, জনৈক নামী পাকিস্তানি ব্যবসায়ী মিয়াদ আসাদ এহসানের বাড়ির বিয়েতে গিয়েছিলেন শত্রুঘ্ন। 

জনপ্রিয়

Back To Top