আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ আবারও বিধ্বংসী দাবানল লাগল অস্ট্রেলিয়ায়। বছরের এই সময়, দক্ষিণ গোলার্ধে গরমকাল থাকার ফলে তাপমাত্রা অত্যধিক বেড়ে গিয়ে শুষ্ক হয়ে যায় পরিবেশ। আর তার ফলেই প্রায়শই এসময় দাবানলের কোপে পড়ে অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড। এবার দেশের পূর্ব উপকূলবর্তী অঞ্চলে দাবানল লেগেছে। ছবির মতো উপকূলবর্তী শহর ফোরস্টারের অধিকাংশ দাবানলের গ্রাসে। দাবানলে ইতিমধ্যেই মারা গিয়েছেন দুজন। তাঁদের মধ্যে গ্লেন ইনস্‌–এর কাছে নিজের বাড়িকে দাবানলের খপ্পর থেকে বাঁচাতে গিয়ে মারা গিয়েছেন ৬৯ বছরের বৃদ্ধা ভিভিয়ান চ্যাপলেইন। অপরজনের পরিচয় এখনও অজ্ঞাত। নিখোঁজ আরও কমপক্ষে সাতজন। জখম ৩০ জন ভর্তি বিভিন্ন হাসপাতালে। ফলে মৃতের সংখ্যা বাড়ার আশঙ্কা করছে প্রশাসন। প্রায় ১৫০টি বাড়ি ছাড়াও দাবানলে ভস্মীভূত বহু স্কুল, অফিস, সেতু সহ বিভিন্ন সরকারি পরিকাঠামো।

রেড ক্রস বলেছে, এপর্যন্ত কমপক্ষে ১৩০০ মানুষ বাড়ি ছেড়ে নিরাপদ স্থানে আশ্রয় নিয়েছেন। শুধু পূর্ব উপকূলেই মোট ৮০টি দাবানল জ্বলছে। পাঁচটা জরুরি সর্তকতা জারি রয়েছে। বনাগ্নি ছড়িয়ে পড়েছে অস্ট্রেলিয়ার পশ্চিমপ্রান্তেও। এপর্যন্ত ১৩০০ দমকলকর্মী মোতায়েন করা হয়েছে দাবানল মোকাবিলায়। পাইপ দিয়ে জল দেওয়া ছাড়াও হেলিকপ্টার এবং বিমান থেকে জল ছিটিয়ে দাবানল নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা চালাচ্ছে দমকল। অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসন বলেছেন, যদি প্রয়োজন পড়ে তাহলে সেনাবাহিনীকে প্রস্তুত রাখা হয়েছে দমকলকে সাহায্য করার জন্য। আবহাওয়ার পরিবর্তনই এই দাবানলের জন্য দায়ী কিনা, সাংবাদিকদের সেই প্রশ্নের উত্তর এড়িয়ে গিয়ে শনিবার তিনি বলেছেন, এখন তাঁর কাছে অন্যতম লক্ষ্য, মানুষের নিরাপত্তা, মৃতদের পরিবারের পাশে দাঁড়ানো এবং দমকলকর্মীদের প্রশাসনিক সহায়তা।               

জনপ্রিয়

Back To Top