‌আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ ভূমিকম্পের পরবর্তী ‘‌আফটারশক’‌–এর পূর্বাভাস পেতে এখন সাহায্য করবে গুগলের কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা। আর এই কাজে গুগলের প্রযুক্তিবিদদের সাহায্য করবেন হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের বৈজ্ঞানিকরা। বিজ্ঞানীরা জানাচ্ছেন, ভূমিকম্প সাধারণত কয়েকটি স্তরে ঘটে। একটি মূল কম্পনের পরে আসে কয়েকটি ‘‌আফটারশক’‌। সবচেয়ে বেশি ক্ষয়ক্ষতি মূল কম্পনের সময়ে ঘটলেও আফটারশকে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণটা নেহাত কম হয় না। মূল কম্পনের পূর্বাভাস পাওয়া না গেলেও কী ভাবে আফটারশক থেকে জনতাকে সাবধান করা যায়, সেটা নিয়েই গুগলের সঙ্গে একযোগে গবেষণা করছিলেন হার্ভার্ডের বিজ্ঞানীদের একটি দল।
গবেষকদলের প্রধান ফোয়েবে ডিভেরিসের কথায়, ‘‌১১৮টি বড় ভূমিকম্প এবং তার আফটারশকগুলির তথ্য বিচার করে আমরা কিছু তালিকা বানাই। মূল ভূমিকম্পের কতটা পরে কতখানি বড় আফটারশক দেখা যায়, সেই তথ্যগুলিও বিশ্লেষণ করা হয়। কোনও একটি দেশ নয়, গোটা পৃথিবীর ভূমিকম্প ও ভূমিকম্পের পরবর্তী কম্পনের তথ্যই আমরা বিশ্লেষণের আওতায় রেখেছিলাম। সেই তথ্যকে গুগলের কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার সঙ্গে মেশানো হয়। মিশ্রিত তথ্য থেকে আমরা নিশ্চিত, অন্তত ৯৭ শতাংশ ক্ষেত্রে আমরা নিখুঁত ভবিষ্যদ্বাণী করতে পারব।’‌

জনপ্রিয়

Back To Top