আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ মার্কিন বিদেশসচিব মাইক পম্পেও–র পাকিস্তান সফরের দু’‌দিন আগে আমেরিকার সঙ্গে চাপানউতোর পাকিস্তানের। পাক বিদেশমন্ত্রী শাহ মেহমুদ কুরেশি রবিবার এক সাংবাদিক সম্মেলনে বলেছেন, ‘‌যে ৩০০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার বাতিলের ঘোষণা করেছে পেন্টাগন তা কোনও ত্রাণের টাকা নয়। ওই অর্থ পাকিস্তান নিজস্ব কোষাগার থেকে ব্যয় করেছিল সন্ত্রাসবাদ নির্মূল এবং সামরিক বাহিনীর মানোন্নয়নের জন্য। ওই পুরো অর্থই পাকিস্তানকে আমেরিকার ফেরত দেওয়ার কথা ছিল। ওই পুরো টাকাটাই পাকিস্তানের নিজের অর্থভাণ্ডারের। কিন্তু হয় এখন তারা ওই অর্থ ফেরত দিতে চাইছে না অথবা পারছে না।’
প্রসঙ্গত গত শনিবার পেন্টাগন ঘোষণা করেছিল দেশের মাটি থেকে সন্ত্রাসবাদ নির্মূলের ব্যর্থতার জন্য পাকিস্তানকে যে ৩০০ মিলিয়ন ডলার ত্রাণ দেওয়ার কথা ছিল আমেরিকার তা বাতিল করা হচ্ছে। তবে মার্কিন কংগ্রেসের অনুমোদনের অপেক্ষায় আছে পেন্টাগন। গত জানুয়ারিতে ওই অর্থ সাহায্যের ঘোষণা করেছিল আমেরিকা। এদিন কুরেশি আরও বলেন, সফরের সময় পম্পেও–র সঙ্গে এনিয়ে তাঁরা আলোচনা করবেন। তাঁর পক্ষও শুনবেন। পাকিস্তানের পক্ষও প্রত্যক্ষভাবে তুলে ধরা হবে পম্পেও–র সানে। কারণ একদিন দেখেই সিদ্ধান্ত নিচ্ছে পেন্টাগন। পাকিস্তান চায় দু’‌দেশের মধ্যে সুসম্পর্ক এবং দ্বিপাক্ষিক সমঝোতা বজায় থাকুক। ওই টাকা ইতিমধ্যেই ব্যয় হয়ে গিয়েছে। সেগুলি পাকিস্তানের নিজেরই টাকা। ভবিষ্যতে আরও খরচের জন্য যদি সেগুলি ফেরত না দেয় আমেরিকা সে তাদের নিজস্ব ব্যাপার। কিন্তু আগে যা ব্যয় করেছে পাকিস্তান তা ফেরত দেওয়া উচিত আমেরিকার। একইসঙ্গে কুরেশি মনে করিয়ে দেন, এই অর্থ বাতিলের ঘটনার সঙ্গে নতুন পাক সরকারের কোনও যোগাযোগ নেই। কারণ এই চুক্তি আগের সরকারের আমলে হয়েছিল।         ‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top