আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ ‌চীনে নিপীড়িত উইঘুর মুসলিম। বিষয়টি নিয়ে প্রকাশ্যে মন্তব্য করতেই নারাজ পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। জানালেন, চীন ভাল বন্ধু। বিপদে পাশে দাঁড়ায়। তাই কখনই চীনের বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে মুখ খুলবেন না তিনি। কিন্তু এদিকে কাশ্মীরে সংখ্যালঘুদের মানবাধিকার লঙ্ঘনের বিষয়টি নিয়ে বারবার প্রকাশ্যে মুখ খুলেছেন তিনি। জার্মান টেলিভিশন ‘ডয়েশে ভেলে’কে দেওয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে কাশ্মীর ইস্যু নিয়ে একের পর এক অভিযোগ করেন পাক প্রধানমন্ত্রী। কিন্তু চীনে যে দীর্ঘ দিন ধরে নিপীড়িত, নির্যাতিত হয়ে চলেছেন উইঘুর মুসলিমরা, সেই প্রসঙ্গ উঠতেই ইমরান বলেন, ‘এটা খুবই স্পর্শকাতর ইস্যু। তাই চীনের সঙ্গে উইঘুর ইস্যু নিয়ে আলোচনাটা এড়িয়ে যেতে চায় ইসলামাবাদ। কাশ্মীরে যা ঘটছে আর তার মাত্রা যতটা, সেই নিরিখে চীনে উইঘুরদের উপর অত্যাচারের অভিযোগের কোনও তুলনাই হয় না। চীন আমাদের খুব ভাল বন্ধু। নানা সময়ে আমাদের অর্থনীতির বিপদে–আপদে, দুর্দিনে চীন আমাদের পাশে দাঁড়িয়েছে। তাই এটা আমাদের কাছে খুব স্পর্শকাতর বিষয়। ফলে এটা আমরা তুলতে পারি শুধুই ঘরোয়া আলোচনায়। কিন্তু কখনওই তা নিয়ে প্রকাশ্যে বলাটা আমাদের উচিত হবে না।’‌ 
চীনে উইঘুর মুসলিমদের প্রতি অত্যাচার নিয়ে এমনিতেই উত্তাল বিশ্ব রাজনীতি। অভিযোগ চীনে উইঘুরদের ধর্মাচরণে বাধা দেওয়া হয়। তাঁদের পাঠিয়ে দেওয়া হয় ডিটেনশন ক্যাম্পে। ভয় বা প্রলোভন দেখিয়ে উইঘুরদের ধর্মান্তকরণেও বাধ্য করা হচ্ছে বলে অভিযোগ। অথচ আন্তর্জাতিক স্তরে এই সব অভিযোগ যত বার উঠেছে, তত বারই মুখে কুলুপ এঁটে থেকেছে ইসলামাবাদ।‌

জনপ্রিয়

Back To Top