আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ পাগড়ি এবং দাড়ির জন্য ৯/‌১১–এর পর আমেরিকা সহ পশ্চিম এশিয়ার বিভিন্ন দেশে হেনস্থা হতে হয়েছিল শিখদের। সেকথা কারও অজানা নয়। আবারও সেই একই ঘটনা ঘটল ইংল্যান্ডের রিডিং শহরে। টেমস্‌ ভ্যালি পুলিশ সূত্রে খবর, বনীত সিং নামে ৪১ বছরের এক ট্যাক্সিচালক স্থানীয় সময় রবিবার ভোরে রিডিং–এর বার্কশায়ারের কাছে গ্রসভেনর ক্যাসিনোর সামনে থেকে তিনি চার শ্বেতাঙ্গ যুবকদের একটি দলকে সওয়ারি হিসেবে গাড়িতে তুলেছিলেন। বনীত পুলিশের কাছে অভিযোগ করেছেন, প্রথমে সাধারণ কথাবার্তা চালালেও কিছুক্ষণ পরই যুবকরা বনীতকে জিজ্ঞাসা করে তিনি তালিবান কিনা। এরপর আচমকা একজন তাঁর মাথায় চড় মারে। একজন তাঁর পাগড়ি খুলে ফেলার চেষ্টা করে। বাকিরা চালকের আসনের পিছন থেকেই তাঁকে লাথি, ঘুঁসি মারতে থাকে। বনীত আরও অভিযোগ করেছেন, তিনি যাত্রীদের বোঝানোর চেষ্টা করেছিলেন যে তিনি তালিবান নন এবং ধর্মীয় কারণেই তাঁর পাগড়ি রয়েছে। কিন্তু যাত্রীরা তাতে কর্ণপাত করেনি। পুরো ঘটনার অভিযোগ টেমস্‌ ভ্যালি পুলিশের কাছে দায়ের করেছেন বনীত। এটা বর্ণবৈষম্যের ঘটনা বলেই মনে করছে পুলিশ। কিন্তু সাক্ষ্যপ্রমাণের অভাবে তদন্ত শুরু করলেও এখনও কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ। ঘটনার কেউ প্রত্যক্ষদর্শী আছেন কিনা তা জানতে চেয়ে আবেদন করেছে পুলিশ। মারধরে অসুস্থ বনীত এখন চিকিৎসাধীন। আদতে পেশায় গানের শিক্ষক বনীত ইংল্যান্ডের টাইলহার্স্ট শহরে স্ত্রী এবং তিন সন্তানের সঙ্গে থাকেন। লকডাউনের জন্য তাঁর গানের স্কুল বন্ধ হয়ে যাওয়ায় সংসার চালাতে ট্যাক্সিচালকের পেশা বেছেছেন। তবে রবিবারের ঘটনায় রীতিমতো আতঙ্কিত এই প্রবাসী ভারতীয় বলেছেন, রাতের ডিউটি তাঁর কাছে আর নিরাপদ মনে হচ্ছে না।         

জনপ্রিয়

Back To Top