সাগরিকা দত্তচৌধুরি: দুপুরে হালকা গরম। সন্ধের পর থেকেই ঠান্ডা। গভীর রাতে বা ভোরে শীতের আমেজ। আবহাওয়ার এই খেয়ালিপনায় জঁাকিয়ে বসছে ব্যাকটেরিয়া, ভাইরাস–‌বাহিত রোগ। ঘরে ঘরে জ্বর–সর্দি–‌কাশি, মাথা ব্যথা, ভাইরাল ফিভার। বাড়ছে নানা ধরনের সংক্রমণ, মশাবাহিত রোগও। খেয়ালি আবহাওয়াকে বাগে আনতে আগেভাগেই সতর্ক হওয়ার পরামর্শ চিকিৎসকদের। আবহাওয়ার তারতম্য হলে ব্যাকটেরিয়াগুলি আরও সক্রিয় হয়ে ওঠে। এ ধরনের পরিবেশ ভাইরাস–ব্যাকটেরিয়ার জন্য অনুকূল। চিকিৎসকেরা জানাচ্ছেন, এই সময় ঠান্ডা–গরমে গলা ব্যথা, নাক দিয়ে জল গড়ানো, জ্বর বাড়ছে। জেনারেল মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ডাঃ অরিন্দম বিশ্বাস জানিয়েছেন, ‘‌গত কয়েক দিনে প্রচুর রোগী আসছেন নিউমোনিয়া নিয়ে। সর্দি–‌কাশির সঙ্গে মারাত্মক শ্বাসকষ্ট হচ্ছে রোগীদের। এ ছাড়া জ্বর তো রয়েইছে। তঁাদের মধ্যে ৩০ বছর থেকে ৬০ বছর বয়সিরাও রয়েছেন। অধিকাংশ রোগীকে ভর্তি করে চিকিৎসার প্রয়োজন পড়ছে। আবহাওয়ার তারতম্যের জন্য এখন বাড়ছে এই ধরনের রোগীর সংখ্যা। নিউমোকক্কাস ব্যাকটেরিয়ার প্রকোপ দেখা যাচ্ছে। অনেকের প্লেটলেট কমে যাচ্ছে।’‌ 

কী করবেন

হালকা শীতের পোশাক কাছে রাখবেন
➨ বেশি ভিড়ে যাবেন না
➨ মুখোশ ব্যবহার 
করুন
➨ বৃষ্টি হলে ভিজবেন না
➨ গরম থেকে ঠান্ডা কিংবা ঠান্ডা থেকে গরম পরিবেশে যাওয়া 
চলবে না
➨ ঠান্ডা পানীয়, আইসক্রিম বা ফ্রিজের জল এড়িয়ে চলুন
➨ বাইরের জাঙ্ক ফুড, তেল–ঝাল–মশলাদার খাওয়া এড়িয়ে চলুন
➨ পরিমাণমতো জল খাবেন
➨ ভোরে হালকা গরম পোশাক পরে বাইরে বেরোন
➨ জ্বর হলে প্যারাসিটামল 
➨ ওষুধ খাওয়ার এক দিনের মধ্যে জ্বর না কমলে ডাক্তার দেখান
➨ নিজে কোনও অ্যান্টিবায়োটিক খাবেন না

জনপ্রিয়

Back To Top