আজকাল ওয়েবডেস্ক: ফেলুদা থাকলে নিশ্চয়ই বলতেন, ‘নিশ্চিন্ত আর থাকা গেল না রে তোপসে।’ করোনার প্রতিষেধক এসে গেছে মানেই নিশ্চিন্ত হয়ে ঘুরে বেড়ানো যাবে এমন নয়। বরং আরও বেশি করে সাবধান হওয়ার সময় এসেছে। কারণ কাউন্সিল অফ সায়েন্টিফিক অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিয়াল রিসার্চ (সিএসআইআর) বলছে, আসতে চলেছে মহা ভয়ঙ্কর ‘থার্ড ওয়েভ’। সিএসআইআর-এর ডিরেক্টর জেনারেল শেখর সি মান্ডে বলছেন, এই সময় অসাবধান হলে কিংবা সুরক্ষায় ঢিলেমি দিলেই হবে মহা বিপদ। 
কোভিড-১৯ সংক্রমণের প্রথম ধাক্কার পর মনে করা হয়েছিল দ্বিতীয় দফা বা ‘সেকেন্ড ওয়েভ’ আরও ক্ষতিসাধন করবে। ভারতে অবশ্য এই দ্বিতীয় ধাক্কা ততটা প্রভাব ফেলতে পারেনি। কিন্তু জানুয়ারির গোড়া থেকে মহারাষ্ট্র, পাঞ্জাব, কেরালা, মধ্যপ্রদেশে নতুন স্ট্রেনের প্রকোপ বেড়েছে। সমস্যা এতটাই যে, এ নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে উচ্চপর্যায়ের বৈঠকও বসেছে। এই আশঙ্কাকেই আরও বড়সড় সিলমোহর দিলেন মান্ডে। 
তৃতীয় ধাক্কার সম্ভাবনার সঙ্গে আরও অন্য সমস্যার কথা শুনিয়েছেন তিনি। জীবাশ্ম-জ্বালানির ওপর নির্ভরতা এবং জলবায়ুর পরিবর্তন সমগ্র মানবসভ্যতা নিশ্চিহ্ন করে দিতে পারে, বলছেন মান্ডে। এর মোকাবিলায় বিজ্ঞান বিষয়ক প্রতিষ্ঠানগুলোর একযোগে নিরন্তর কাজ করতে হবে বলে জানান তিনি। রাজীব গান্ধী সেন্টার ফর বায়োটেকনোলজি ন্যাশনাল সায়েন্স ডে-র ভাষণে কোভিড-১৯ এর মোকাবিলায় ভারতের প্রতিক্রিয়া নিয়ে বক্তব্য রাখছিলেন মান্ডে। তিনি বলেন, হার্ড ইমিউনিটি পেতে এখনও অনেক দেরি আছে ভারতের। সন্তুষ্টির কোনও জায়গাই নেই, জনগণের মাস্ক পরা এবং শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখার অভ্যাস চালিয়ে যেতে হবে।            
 

জনপ্রিয়

Back To Top