আজকাল ওয়েবডেস্ক: তবে কি প্রতিষেধক আসার আনন্দে মানুষ যেভাবে স্বাভাবিক ছন্দে ফিরছিল তাতে ছেদ পড়তে চলছে? নাকি ফের একবার করোনার নয়া স্ট্রেনকে হারিয়ে জয়ী হবে বিজ্ঞান? বিজ্ঞানের জয় হবে। তা নিয়ে মোটেই ভাবিত নন বিশেষজ্ঞরা। তবে নতুন করে করোনার ভয়ও যে পিছু ছাড়ছে না। সবাই ভাবছিলেন প্রতিষেধক চলে এসেছে, তাই রেহাই। কিন্তু দেশে নতুন করে সংক্রমণের বাড়বাড়ন্তে বাড়ছে চিন্তা। কেউ কেউ আশঙ্কা করছেন ‘দ্বিতীয় ঢেউ’-এর। মহারাষ্ট্র, কেরল, মধ্যপ্রদেশ এবং পাঞ্জাব-সহ ভারতের একাধিক রাজ্যে যেভাবে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে, তাতে সেই আশঙ্কা একেবারেই অমূলক নয়, বলছেন অভিজ্ঞরা। বিশেষত করোনা ভাইরাসের চারিত্রিক পরিবর্তন চিন্তা বাড়াচ্ছে বিজ্ঞানী এবং চিকিৎসকদের। এরই মাঝে পাঁচ রাজ্যকে চিঠি দিয়ে সতর্ক করেছে কেন্দ্রীয় সরকার। চিকিৎসা বিজ্ঞানীরাও করোনা ভাইরাসের মিউটেশন ও চারিত্রিক পরিবর্তনের দিকে সতর্ক দৃষ্টি রেখে চলেছেন। যদিও এখনও পর্যন্ত N440K এবং E484K, এই দুটি স্ট্রেনের সন্ধান মিলেছে মহারাষ্ট্র, কেরালা এবং তেলেঙ্গনায়। প্রায় ৩৫০০ নমুনা পরীক্ষা করে দেখা হয়েছে এই ক’দিনের মধ্যে। বিজ্ঞানীরা দেখছেন ভাইরাসের অস্বাভাবিক কোনও পরিবর্তন নজরে আসে কিনা। তবে এখনও পর্যন্ত তা সেভাবে নজরে আসেনি। প্রাথমিকভাবে রোগের বিস্তার ছড়িয়ে পড়া রোধ করতে পরীক্ষার সংখ্যা বাড়ানোর পরামর্শ দিয়েছে স্বাস্থ্যমন্ত্রক। সঙ্গে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার উপরও বিশেষ গুরুত্ব আরোপ করা হয়েছে। কারণ নিউ-নরমাল জীবনযাত্রায় অনেকটা অভ্যস্ত হয়ে পড়া এদেশের একটা বৃহৎ অংশের মানুষ টিকা আসার পর কেমন যেন উদাসীন হয়ে পড়েছিলেন স্বাস্থ্যবিধি মানার ক্ষেত্রে। তবে করোনা যে আমাদের ছেড়ে যায়নি তা মহারাষ্ট্র, কেরল এবং তেলঙ্গনায় এই ক’দিনে বুঝিয়ে দিয়েছে। আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে আর চিন্তা বাড়ছে গোটা দেশেই। এভাবে বাড়তে থাকলে কি ফের একবার লকডাউনের পথে হাটতে হবে? সেই প্রশ্নও উঁকি দিচ্ছে সাধারণের মধ্যে। 
 

জনপ্রিয়

Back To Top