আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ দেশে যত রকমের দুধ বিক্রি হয়, তার মধ্যে সাত শতাংশই পানযোগ্য নয়। এমনকি অনেক দুধে এমন ক্ষতিকর পদার্থ আছে যাতে ক্যান্সার হতে পারে। ফুড সেফটি অ্যান্ড স্ট্যান্ডার্ড অথরিটি অফ ইন্ডিয়া বা এফএসএসএআই–এর সাম্প্রতিক সমীক্ষায় এমনটাই উঠে এসেছে। জাতীয় দুগ্ধ নিরাপত্তা এবং গুণাগুণ সমীক্ষা ২০১৮, দেশজুড়ে মোট ১১০৩টি শহরে ৬৪৩২ দুধের নমুনা পরীক্ষা করেছিল। তাতে দেখা যায় প্রায় ৯৭ শতাংশ পানযোগ্য। এফএসএসএআই ২০১৮–র মে থেকে অক্টোবরের মধ্যে দেশের সব কটি রাজ্য এবং কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে বিক্রিত দুধের নমুনা পরীক্ষা করে দেখে প্রায় ৭ শতাংশ দুধের নমুনায় রয়েছে অ্যাফ্লাটক্সিন–এম১, অ্যান্টিবায়োটিক এবং কীটনাশক। ৪১ শতাংশ দুধ নিরাপদ হলেও গুণাগুণের মাপকাঠিতে ব্যর্থ সব কটিই। এফএসএসএআই–এর সিইও পবন আগরওয়াল জানালেন, গুণাগুণের মাপকাঠিতে ৪৫৬টি নমুনা ব্যর্থ হয়েছে। তার মধ্যে ১২টি নমুনায় ডিটারজেন্ট, ইউরিয়া এবং হাইড্রোজেন পারঅক্সাইড মিলেছে। যার অর্থ সাধারণ মধ্যবিত্তের ঘরে যেসব দুধ কেনা হয় সেগুলি বেশিরভাগই এর মধ্যে পড়ে। এই ১২টি নমুনার মধ্যে ৯টি তেলঙ্গনার, দুটি মধ্য প্রদেশের এবং একটি কেরলের। দুধে অ্যাফ্লাটক্সিন–এম১–এর উপাদান মেলায় রীতিমতো উদ্বিগ্ন এফএসএসএআই। কারণ এই উপাদান শরীরের পক্ষে মারাত্মক। পবন বললেন, ২০২০–র পয়লা জানুয়ারি থেকে দেশের সব সংগঠিত ডেয়ারি ফার্মগুলিতে দুধের নমুনা সংগ্রহের প্রক্রিয়া শুরু করবেন তাঁরা। প্রসঙ্গত, ২০১৭–১৮ সালে বিশ্বের দুধ উৎপাদনের ২০ শতাংশ বা ১৭৬.‌৩ মিলিয়ন টন দুধ উৎপাদন করে সারা দেশে দুধ উৎপাদনে শীর্ষে ছিল ভারত।    

জনপ্রিয়

Back To Top