আজকাল ওয়েবডেস্ক: সম্প্রতি গোটা দেশে পালিত হয়েছে চতুর্থ আন্তর্জাতিক যোগ দিবস। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি থেকে শুরু করে দেশের তাবড় তাবড় ব্যক্তিরা অংশ নিয়েছেন সেই অনুষ্ঠানে। আর এবার সেই যোগা করার সুফল কী? সেটাই জানালেন ফর্টিস হাসপাতালের চিকিৎসকরা। ৫০০০ বছর আগে এই ভারতেই শুরু হয়েছিল যোগার। সেটাই এখন ছড়িয়ে পড়েছে গোটা বিশ্বে। বর্তমানে কোটি কোটি লোক শরীর সুস্থ রাখতে এই যোগার উপরেই ভরসা রেখে থাকেন। আর এবার ফর্টিস হাসপাতালের চিকিৎসকরাও একই কথা জানালেন। আনন্দপুরের ফর্টিস হাসপাতালের অস্থি বিভাগের ডিরেক্টর ডাঃ রণেন রায় বলেন, 'যোগা শরীরের মাংসপেশি কিংবা সন্ধিগুলির জড়তা কাটিয়ে দেয়। পাশাপাশি মানসিক দুঃশ্চিন্তাও দূর করে। যা কিনা একজন মানুষকে সুস্থ-সবল থাকতে সবসময় সাহায্য করে।' এর পাশাপাশি তিনি জানান, অপারেশনের পরে সুস্থ হয়ে উঠতেও যোগার গুরুত্ব অপরিসীম। হাসপাতালের আরেক চিকিৎসক রাজা ধর জানান, যোগার সাহায্যে ফুসফুসের একাধিক রোগ কমে যেতে পারে। পাশাপাশি শ্বাসকষ্টও দূর হয়ে যায়। কারণ যোগা করার ফলে ফুসফুসের পেশিগুলি সহজে সংকুচিত-প্রসারিত হতে পারে। তাই শ্বাস নিতে যদি কষ্ট হয়, তাও অনেকাংশে লাঘব হয়। যোগায় সুফল পেতে পারেন অ্যাস্থমা এবং সিওপিডি-র রোগীরাও। অপর চিকিৎসক ডাঃ শুভানন রায়ও যোগার সুফল নিয়ে বক্তব্য রাখেন। তাঁর কথায়, ব্লাডপ্রেসারের রোগীরাও যোগা করলে তার সুফল পাবেন।   

জনপ্রিয়

Back To Top