সাগরিকা দত্তচৌধুরি: ‌বহু মানুষ ‘‌গুগল’–‌কে চিকিৎসকের সঙ্গে তুলনা করে বিপদ ডেকে আনেন। গুগল সার্চ করে কখনই কোনও ওষুধ খাওয়া উচিত নয়। শরীরে সাধারণ কোনও সমস্যা বা উপসর্গ দেখা দেওয়া মাত্রই গুগলে খুঁজে অযথা ভয় পেয়ে ভুল ভাবতে শুরু করেন। এমনকি ডাক্তারের চেম্বারে এসেও প্রেসক্রিপশন দেখে গুগলে ঘাঁটাঘাঁটি করে চিকিৎসককে অবিশ্বাস করেন। গুগল–‌নির্ভর না হয়ে চিকিৎসকের ওপর রোগীদের ভরসা রাখা জরুরি বলে জানান আমেরিকান কলেজ অফ ফিজিশিয়ান‌ (‌এসিপি)‌ ভাইস প্রেসিডেন্ট আরজি করের মেডিসিনের অধ্যাপক ডাঃ জ্যোতির্ময় পাল। কলকাতায় এসিপি ইন্ডিয়া চ্যাপ্টারের চতুর্থ বার্ষিক ইন্টারনাল মেডিসিন কংগ্রেসে দেশ–বিদেশের মেডিসিন বিশেষজ্ঞরা বিভিন্ন বিষয়ে আলোকপাত করেন। মেডিসিনের বর্ষীয়ান চিকিৎসক ইন্ডিয়ান কলেজ অফ ফিজিশিয়ানের ডিন ডাঃ অমলকুমার ব্যানার্জি বলেন, ‘মাশরুম খাওয়া শরীরের পক্ষে উপকারী হলেও, যেগুলো খাওয়ার যোগ্য বাজারে বিক্রি হয়, সেগুলোই খাওয়া উচিত। কিছু ধরনের মাশরুম ক্ষতিকর। বিশেষত বাঁশবনের ধারে যে ধরনের মাশরুম দেখা যায় সেগুলি বিষাক্ত। মাশরুম লিভারে সংক্রমণ ছড়ায়। এমনকী মস্তিষ্কেও প্রভাব ফেলে। গ্রামেগঞ্জের মানুষরা না জেনে বুঝেই যেখান–সেখান থেকে বিষাক্ত মাশরুম তুলে খেয়ে কঠিন ব্যাধির শিকার হন। মানুষকে এই বিষয়ে চিকিৎসকদেরই সচেতন করতে হবে।’‌ 
এবারের থিম ‘‌ফিজিশিয়ান খুশি তো রোগীরাও খুশি’‌ উল্লেখ করে এসিপি ইন্ডিয়া চ্যাপ্টারের গভর্নর ডাঃ বি এ মুরুগানাথন বলেন, ‘‌চিকিৎসকদের চাপের মধ্যে কাজ করতে হয়। তবে তার মধ্যেও হাসিমুখে একটু ভালবেসে আন্তরিকতার সঙ্গে যদি রোগী দেখেন তাহলে চিকিৎসকের সঙ্গে সম্পর্ক মধুর হবে, বিশ্বাসও থাকবে। স্ট্রেস মুক্ত হয়ে কাজ করলে রোগ নির্ণয় ঠিক হবে, রোগীরাও খুশি হবেন। ফলে সমস্যা কমবে।’‌ সম্মেলনের অর্গানাইজিং চেয়ারম্যান ডাঃ সত্যব্রত গাঙ্গুলি বলেন, ‌বিভিন্ন ওষুধের আরও কি আপডেট বেরিয়েছে। বিভিন্ন রোগের চিকিৎসায় বিদেশে কী অনুসরণ করা হচ্ছে সেগুলি আলোচনা হয়।‌‌ সম্মেলনের অর্গানাইজিং সেক্রেটারি জানান, দূষিত পরিবেশ থেকে কী কী রোগ হচ্ছে, অ্যান্টিবায়োটিকের অপব্যবহার, প্রাপ্তবয়স্কদের প্রয়োজনীয় ভ্যাকসিন, সাপে কাটলে প্রাথমিকভাবে কী করণীয়, সংক্রামক ব্যাধি নিরাময়ে কোন ওষুধ সর্বোত্তম প্রভৃতি বিষয়ে শুক্র থেকে রবিবার তিনদিনব্যাপী মেডিসিন বিশেষজ্ঞরা আলোচনা করেন। ‌

জনপ্রিয়

Back To Top