সাগরিকা দত্তচৌধুরি: ক্যান্সার হলে নো আনসার— এই ভাবনাকে দূরে সরিয়ে নতুন দিশা দেখাচ্ছে ‘‌দিশা ফর ক্যান্সার’‌। ক্যান্সার–আক্রান্তরা শরীরচর্চা, সাজগোজ করা থেকে শুরু করে অন্য রোগীদের সঙ্গে প্রাণ খুলে যাতে মনের কথা ভাগ করে নিতে পারেন, তঁাদের জন্য ‘‌দিশা ফর ক্যান্সার’‌ চালু করেছে কমপ্রিহেনসিভ রিহ্যাবিলিটেশন ক্লিনিক। যা ক্যান্সার–‌আক্রান্তদের কাছে রীতিমতো ভরসার জায়গা হয়ে উঠেছে। কারণ করাল কর্কট রোগের মোকাবিলা করার রসদ পাচ্ছেন রোগীরা। দুঃস্থ ক্যান্সার–আক্রান্তদের বিনামূল্যে কৃত্রিম স্তন, পরচুলা, মেকআপের সরঞ্জাম দেওয়ারও পরিকল্পনা করেছে সংশ্লিষ্ট সংস্থা। লেক গার্ডেন্স সুপার মার্কেটের বিপরীতে এই ক্লিনিক ফেব্রুয়ারি মাসে চালু হয়েছে। মাত্র দু’‌মাসেই বহু নতুন রোগী যোগাযোগ করেছেন। সংস্থার প্রতিষ্ঠাতা–সম্পাদক ডাঃ অগ্নিমিতা গিরি সরকার নিজে শিশুরোগ বিশেষজ্ঞ হলেও, ক্যান্সার–‌আক্রান্তদের পাশে সব সময় থাকেন। তিনি বললেন, ‘‌একজন ক্যান্সার–আক্রান্ত মানসিক ভাবে বিপর্যস্ত না হয়ে কীভাবে আনন্দে বঁাচতে পারবেন, তার জন্য আমাদের ক্লিনিকে নানা রকম ব্যবস্থাপনা রয়েছে। রোগী ও তঁার পরিবারের সদস্যদের কাউন্সেলিংও করা হয়, যেটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। রোগীকে অন্য ক্যান্সার–আক্রান্তরা বোঝানোয় ভাল ফলাফল পেয়েছি।’ বিনামূল্যে ব্রেস্ট প্রস্থেটিস অর্থাৎ কৃত্রিম স্তন দেওয়ার ব্যবস্থা করলেও, সবচেয়ে দামি সিলিকন প্রস্থেটিস, যা এই মুহূর্তে তঁারা দিতে পারছেন না। কিন্তু কম দামে পাওয়ার জন্য বিভিন্ন কোম্পানির সঙ্গে কথাবার্তা চালাচ্ছেন সংস্থার কর্ণধার। তবে সিলিকনের বদলে আপাতত দু–একজন রোগী নিজেরাই সুতির নরম কাপড়,স্পঞ্জ দিয়ে আরামদায়ক কৃত্রিম স্তন তৈরি করছেন। পরচুলাও বিনামূল্যে দেওয়ার ব্যবস্থা করেছেন। অগ্নিমিতা বলেন, ‘‌অনেক ক্যান্সার রোগীর লম্বা চুল আছে। সেই চুলের প্রতি তঁাদের ভীষণ মায়াও থাকে। কেমো শুরুর আগে সেই চুল সম্পূর্ণ কেটে রাখা উচিত যাতে পরে সেই দিয়েই উইগ বানানো যায়। সে–‌কারণে কয়েকজন কারিগরের সঙ্গে কথাও হয়েছে। অনেকে সুন্দর করে মেকআপ করতে চান, কিন্তু লোকলজ্জার ভয়ে বাইরে বেরোতে পারছেন না। সেটা ভেবে রোগীদের মেকআপের সরঞ্জামও বিনামূল্যে দেব।’
ক্যান্সার সারভাইভার সীমারেখা রায়চৌধুরি বলেন, ‘‌অপারেশনের পর হাতে লিম্ফইডিমা হয়ে হাত–পা ফুলে যায়, পিঠে ব্যথা, গঁাটে–‌গঁাটে যন্ত্রণা হয়। এ–‌সব নির্মূলে স্ট্রেচিং এক্সারসাইজ করানো হয়। ২০১৪ সাল থেকে আমরা পথ চলা শুরু করি।  এখন প্রায় ৪০ জন সদস্য, সকলেই মহিলা যঁারা ক্যান্সারকে জয় করে লড়াই চালাচ্ছেন।’‌‌‌‌‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top