অলোকপ্রসাদ চট্টোপাধ্যায়: গভীর কথাকে সহজ করে বলা খুব কঠিন। সেই কঠিন কাজটাই করতে চান পরিচালক জুটি সুদেষ্ণা রায় ও অভিজিৎ গুহ। বছর তিনেক আগে কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের উদ্বোধনী ছবি ছিল তাঁদেরই ‘‌বেঁচে থাকার গান’‌। এবার তাঁদের নতুন ছবি ‘‌শ্রাবণের ধারা’‌ এই উৎসবের এশিয়ান ছবির প্রতিযোগিতায়, ‘‌নেটপ্যাক’‌-‌এ।
এই ছবিও আসলে বেঁচে থাকারই এক অন্য গান—বললেন সুদেষ্ণা এবং অভিজিৎ। ইতিমধ্যে এই ছবি বিদেশেও প্রশংসিত হয়ে এসেছে। প্রদর্শিত হয়েছে টরেন্টো ইন্টারন্যাশনাল ফিল্ম ফেস্টিভ্যাল অফ সাউথ এশিয়ায় (‌আই এফ এফ এস এ)‌। এবার কে আই এফ এফ-‌এ।
সুদেষ্ণা জানালেন, এই ছবিতে তিনটি গুকুত্বপূর্ণ চরিত্রে অভিনয় করেছেন সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়, পরমব্রত চট্টোপাধ্যায় ও গার্গী রায়চৌধুরি। প্রবীণ আমিতাভ সরকারের চরিত্রে আছেন সৌমিত্রবাবু। অমিতাভ সরকার অ্যালজাইমার্স-‌এ আক্রান্ত। তাঁর কাছে অতীতটাই বড় এবং স্পষ্ট। বর্তমান এবং ভবিষ্যৎ তাঁর কাছে ধোঁয়াশা। ডাক্তার নীলাভ রায়ের চরিত্রে পরমব্রত, যিনি আবার অস্বীকার করতে চান অতীতকে। আর, এই দুই পুরুষের মাঝখানে আছেন এক নারী, শুভা সরকার, যিনি সৌমিত্রবাবু তথা অমিতাভ সরকারের স্ত্রী। এক অসম বয়সী সম্পর্ক। এই সম্পর্কের টানাপোড়েন যেমন আছে, তেমনই আছে ডাক্তার-রোগীর সম্পর্ক নিয়েও দ্বন্দ্ব।
সুদেষ্ণা জানান, একদিকে যেমন জীবনের সম্পর্কের দ্বন্দ্ব আছে, তেমনি মূল্যবোধের দ্বন্দ্বও এই ছবিতে গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছে।
সময়ের সঙ্গে সঙ্গে কি মূল্যবোধ পাল্টে যায়?‌ সত্তর দশকের কিংবা আশির দশকের মূল্যবোধ কি আজ ২০১৯-‌এও প্রাসঙ্গিক?‌ প্রশ্ন তুলেছে এই ছবি।
নীলাভ রায়ের স্ত্রীর চরিত্রে অভিনয় করেছেন বাসবদত্তা।
দুই প্রজন্মের দুই পুরুষ। তার মাঝখানে শুভা সরকারের চরিত্রে গার্গী রায়চৌধুরি।
শুভা সরকারের চরিত্রটা কতটা চ্যালেঞ্জিং ছিল?‌ একদিকে প্রবীণ সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়, অন্যদিকে পরমব্রত।
গার্গী বললেন, এই চ্যালেঞ্জটাই একজন শিল্পী হিসেবে, অভিনেত্রী হিসেবে আমাকে উদ্দীপ্ত করে। আর, অভিনয়ের এই চ্যালেঞ্জটা বরাবরই সুদেষ্ণাদি, রানাদা (‌অভিজিৎ গুহ)‌ আমাকে দিয়েছেন। ‘‌শুধু তুমি’‌, ‘‌তিন ইয়ারি কথা’‌, ‘‌বিটনুন’‌, ‘‌বেঁচে থাকার গান’‌-‌এর পর ওদের সঙ্গে ‘‌শ্রাবণের ধারা’‌ করলাম। প্রতিটা চরিত্র অন্যরকম।
একটু মজা করেই গার্গী বললেন, জুটি পরিচালকরা আমাকে চ্যালেঞ্জিং ক্যারেক্টার দিতে ভালবাসেন। যেমন রানাদা, সুদেষ্ণাদি, তেমনি শিবু, নন্দিতাদি।
উচ্ছ্বসিত গার্গী বললেন, নিজেকে নতুন করে চেনার ছবি ‘‌শ্রাবণের ধারা’‌। এই ছবি নতুন করে ভাবায়, নতুন করে বাঁচতে শেখায়। এবং গার্গী মনে করেন, গভীর কথাকে সহজ করে বলার কাজটা এখানেও করে দেখিয়েছেন দুই পরিচালক। আর, সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে এমন একটা চরিত্রে অভিনয় করাটাও অভিনয়-‌জীবনের অন্যতম সেরা অভিজ্ঞতা বলেই মনে করেন গার্গী।
আর, সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায় যে ভাল চিত্রনাট্য এবং চরিত্র পেলে আজও কতখানি সম্পৃক্ত হয়ে পড়েন, ‘‌শ্রাবণের ধারা’‌ তার একটা দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে। অ্যালজাইমার্স আক্রান্ত একজন মানুষ কেমন আচরণ করবে, শুটিংয়ের ফাঁকে সেটা নিখুঁত করার জন্যে আলোচনাও করেছেন ডা.‌ শুভেন্দু সেনের সঙ্গে। নিউজার্সির এই ডাক্তারবাবুর কাহিনি ‘‌বিটুইন রেইনড্রপস’‌ নিয়েই এই ছবি। শুটিংয়ের সময় তিনি কলকাতায় আসেন।
এবং সুদেষ্ণা জানালেন, এই ছবির নাম আসলে ‘‌শ্রাবণের ধারা:‌ বিটুইন রেইনড্রপস’‌। এই কাহিনিকে চিত্রনাট্যে রূপ দিয়েছেন পদ্মনাভ দাশগুপ্ত। ফলে কাহিনিতে সংযোজনও করেছেন তিনি। এক পেশাদার ব্যস্ত চিকিৎসকের চরিত্রে অভিনয় করে খুশি পরমব্রতও। এ ছবির ক্যামেরা করেছেন প্রভাতেন্দু মণ্ডল। সম্পাদনা সুজয় দত্তরায়। সঙ্গীত পরিচালনায় আশু-‌অভিষেক। গান গেয়েছেন জয়তী চক্রবর্তী, ইমন ও রূপঙ্কর।
ছবির নাম ‘‌শ্রাবণের ধারা’‌। প্রথমে ঠিক ছিল ‘‌শ্রাবণের ধারার মতো’‌। ‘‌মতো’ শব্দটি বাদ গেলেও রবীন্দ্রনাথের এই গানটি আছে ধ্রুবপদের মতো। জীবনের গভীর রহস্য উন্মোচনে রবীন্দ্রনাথের গানটির ব্যবহার তাৎপর্যপূর্ণ হয়ে উঠবে সন্দেহ নেই। শ্রাবণের ধারার মতো যে সুর সুখের পরে, দুখের পরে ঝরে পড়লে এ-‌জীবনের অপার বিস্ময় উন্মোচিত হয়, সেই সুরটাই‌ হয়ত খুঁজতে চেয়েছে এই ছবি। এবার অপেক্ষা শুরু।
(‌‘‌শ্রাবণের ধারা’ প্রদর্শিত হবে আগামীকাল রবিবার রবীন্দ্রসদনে সন্ধ্যা ৭টায়।)‌‌‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top