আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ সেপ্টেম্বর মাসে মুক্তি পেয়েছিল ‘রাজলক্ষ্মী ও শ্রীকান্ত’। কলকাতায় হল পেতে কম ঝক্কি পোয়াতে হয়নি পরিচালক প্রদীপ্ত ভট্টাচার্যকে!‌ সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট। প্রতিবাদ। তারপর টনক নড়েছিল। হল পাওয়া গিয়েছিল। তাও শর্তসাপেক্ষে। প্রথম চার দিনে যদি ৫০–৫৫ শতাংশ দর্শক হলে না আসেন, তা হলে পুজোর আগেই হল থেকে তুলে নেওয়া হবে ছবি। কারণ সেই সপ্তাহেই মুক্তি পেয়েছিল একাধিক বাংলা ও হিন্দি ছবি। আর তাই ঘটেছিল। মাত্র পাঁচদিন হলে টিকেছিল জাতীয় পুরষ্কার প্রাপ্ত পরিচালকের ছবি ‘রাজলক্ষ্মী ও শ্রীকান্ত’। ছবিটি বানিয়েই হাফ ছেড়ে বাঁচেননি পরিচালক। লড়াই আরও কঠিন হয়েছে। শহরে হল পাওয়ার জন্য ছোটাছুটি। হল থেকে ছবিটি সরিয়ে নেওয়ার পরও লড়াই থামাননি পরিচালক। নিজের উদ্যোগেই ছবিটি শহর–গ্রামে দিতে পৌঁছে দিতে চাইছেন। ছবির টিকিট বিক্রির জন্য রাস্তায় নেমে পড়েছেন। নন্দন চত্বরে বন্ধু–বান্ধবদের সঙ্গে বসে টিকিট বিক্রি করছেন। পরিচালক বলছেন, ‘‌এটা আমি আগেও করেছি। বাকিটা ব্যক্তিগত যখন এক সপ্তাহের মধ্যেই হল থেকে তুলে নেওয়া হয়েছিল, সেসময়েও আমরা নিজেরা প্রোজেকশনের ব্যবস্থা করেছিলাম। বাড়ি বাড়ি গিয়ে টিকিট বিক্রি করেছিলাম। এবারেও তাই ঘটল। পাঁচদিনের বেশি হলে রাখা হল না ছবিটা। তাই আমি আবার ওই পদ্ধতিতে ফিরে এসেছি। সেবারে গ্রামে করেছিলাম। এবার শহরে করছি। ‘রাজলক্ষ্মী ও শ্রীকান্ত’–এর আগামী দিনে বড়পর্দায় মুক্তি পাওয়ার সম্ভাবনা আছে কিনা জানতে চাইলে পরিচালক জানান, ‘‌আমি ঠিক জানি না। আমরা নিজেরাই বড়পর্দা বানিয়ে, প্রোজেক্টর নিয়ে গিয়ে করছি। ওটা বড় পর্দাই হবে। আর আমি এটা পছন্দও করি। কারণ এই পদ্ধতিতে আমি দর্শকদের সঙ্গে সামনাসামনি কথা বলতে পারছি। তাঁদের মতামত সরাসরি জানতে পারছি।’‌
প্রদীপ্ত ভট্টাচার্যের এই পদক্ষেপকে ‘‌বিপ্লব’‌ বলছেন বন্ধু পলাশ বর্মণ। ফেসবুকে তিনি লিখেছেন, ‘‌প্রথমেই একজন শিল্পীকে একাজ করতে হলে তাঁর অহং ছুড়ে ফেলতে হবে। তারপর শিল্পের নির্জন আবাস ও সংযোগ ছেড়ে বেরিয়ে পড়তে হবে মানুষের মন ও মননের বাজারে। অথচ, হাতে পুঁজি নেই। যা আছে, তা হল, প্রবল আত্মবিশ্বাস, লড়াইয়ের ক্ষমতা আর নিজের কাজের প্রতি মেধাবী নিষ্ঠা। এই তার পুঁজি।’‌  
উল্লেখ্য, প্রদীপ্ত ভট্টাচার্যের নতুন ছবি ‘‌রাজলক্ষ্মী ও শ্রীকান্ত’‌–এর চারটে বিশেষ প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়েছে আগামী ২৯ ও ৩০ নভেম্বর। সময়– দুপুর ২.৩০ ও সন্ধে ৬.১৫। স্থান– যোগেশ মাইম একাডেমি, কালীঘাট। টিকিট ১০০ টাকা। কলেজ স্ট্রিট অঞ্চলে প্রাপ্তিস্থান– বই ক্যাফে কলিকাতা, ৩ রমানাথ মজুমদার স্ট্রিট, কলকাতা ৯। এছাড়াও পরিচালকের জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত সিনেমা ‘‌বাকিটা ব্যক্তিগত’‌ নিয়ে কলিকাতা লেটারপ্রেস থেকে প্রকাশিত বিপুল একটি গবেষণামূলক আকরগ্রন্থ ‘‌বাকিটা ব্যক্তিগত: সম্পূর্ণ চিত্রনাট্য ও অন্যান্য প্রসঙ্গ’‌ এখন পাওয়া যাচ্ছে কলকাতা ফিল্ম ফেস্টে ‘‌সিনে সেন্ট্রাল’‌ ও ‘‌ফেডারেশন অফ ফিল্ম সোসাইটিজ’‌ স্টলে।‌

ছবি— ফেসবুক

জনপ্রিয়

Back To Top