বড় হয়ে তোমার ছেলে লোক হাসাবে‌, আম্মিকে বলা ‌‌আব্বার কথা মিলে গেছে!‌ বুদ্ধিজীবীতে অ্যালার্জি হলে নিজে কী?‌ মুখোমুখি প্রশ্ন করলেন সুতপা ভৌমিক

 ‘‌আ রিহার্সড প্যাকেজ অফ স্পন্টেনিটি’‌, টুইটার বায়োতে লেখা শব্দগুলো নিজের সম্পর্কে যথার্থ ব্যাখ্যা?‌ নাকি এই লাইনগুলোর বাইরেও কোথাও একটা মীর আছেন?‌
মীর আফসার আলি:‌ আমার ব্যাপারে লোকে যেটা সবচেয়ে বেশি পছন্দ করেন সেটা স্বতঃস্ফূর্ততা। আমি মজা করে জুড়েছি ‘রিহার্সড প্যাকেজ’‌। স্পন্টেনিটি যখন কেউ রিহার্স করে, সেটা সোনার পাথরবাটির মতো শোনায়!‌ আসলে তা হয় না। সোশ্যাল সাইটে নিজেকে নিয়ে লিখলে বা বললে একটু আলাদা লিখলে ভাল হয়। 
 ‌১৯৯৪ সালে ধোপার কাছে রাখা জামাকাপড় মোড়া ছিল যে কাগজে সেখানে রেডিও জকির বিজ্ঞাপনটা চোখে না পড়লে মীর কি সকাল সকাল ‘‌হাই কলকাতা’‌ বলার সুযোগ পেতেন?‌
মীর:‌ নাহ্‌। হয়ত এই জীবনটাই দেখা হত না। নিজেকে ছাপিয়ে যাওয়ার ইচ্ছে সকলের থাকে। কাকতালীয়ভাবে আমাকে সেই সুযোগটা করে দিয়েছেন একজন ধোপা!‌ যিনি নিজেও বুঝতে পারলেন না আমার কতটা উপকার করলেন।
 রেডিও জকি, টেলিভিশন সঞ্চালক, গায়ক, ব্যান্ডেজের জন্মদাতা, কমেডিয়ান— একজন এত ভূমিকায়?‌
মীর:‌‌ (‌‌শ্বাস ফেলে)‌‌ এখন হাঁপিয়ে উঠছি। মনে হচ্ছে কয়েকটা বালতি নামিয়ে রাখলে ভাল হয়। জল বেশিই উপচে পড়ছে। যেদিন নিজের মনে হবে কোয়ালিটি খারাপ হচ্ছে, অফলোড করব। এটুকু সততা আমি নিজের কাছে এক্সপেক্ট করি। 
 নিজেকে মাল্টি ট্যালেন্টেড বলায় আলাদা অনুভব আছে?‌
মীর:‌‌ মাল্টি ট্যালেন্টেড নাকি মাল টি ট্যালেন্টেড (‌অট্টহাসি)‌?‌ আমি জনসংযোগ খুব ভাল করতে পারি। সেই ক্ষমতাটারই প্রয়োগ বিভিন্ন মাধ্যমে করছি। 
 ‘‌হাই কলকাতা’‌য় ‘‌আই লাভ ইউ’‌ মেসেজ এসেছে?‌
মীর:‌‌ আসতেই থাকে। সেটা শুধুমাত্র অপোজিট সেক্সের কারও থেকেই এমন নয়, বিভিন্ন বয়সীদের থেকে আসতে থাকে।  
 শুনে মন কী বলে? বসন্ত এসে গেছে?‌‌ নাকি রেগে–আগুন?‌ 
মীর:‌‌ মনের দিক থেকে কচি থাকার চেষ্টা করি। মাঝে মাঝে ফ্লার্টও করি। ইচ্ছেও করে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার। তারপর নানা কাজে জমিয়ে প্রেম করা হয় না। রেডিওর কাজে শ্রোতার সঙ্গে বহুবার প্রেম হয়েছে। আবার নৈহাটির এক ভদ্রমহিলা আমার গলা রেডিওতে শুনে প্রথমবার ভেবেছিলেন তাঁর মৃত ছেলের সঙ্গে কথা বলছেন। চার বছর চলেছিল সেই সম্পর্ক। ‌১৯৯৮ সালে টেলিভিশনে ‘খাসখবর’–এ আমাকে দেখার পর যোগাযোগ বন্ধ করে দেন। চিঠি লিখে জানতে চাওয়ায় লিখেছিলেন, ‘রেডিও ছেড়ে কেন টিভিতে যোগ দিলে? যেরকম ভেবেছিলাম, তুমি তেমন নয়।’‌ 
 এফএমে এত হিন্দি গান কেন?‌ বাংলা গান কম পড়িয়াছে?‌
মীর:‌‌ বাংলা গান কম পড়েনি। হিট গান দেওয়ার ব্যাপারটা কম পড়ছে। ইউটিউবে বেশি লাইক পাচ্ছে যে ভিডিও তার অধিকাংশ হিন্দি, পাঞ্জাবি। ফলে এফএম স্টেশনগুলো সেই সেফ জোনটা থেকে আর বেরোতে চাইছে না।
 ঋতুপর্ণ ঘোষের সঙ্গে ঝামেলা নিয়ে অনুতাপ আছে?‌
মীর:‌‌ অনুতাপ নেই। হালকা আফশোস আছে। অন্যান্য অনেকে এই বিষয়টায় ঢুকে এসেছিল। তাদের কথা ঋতুদা না শুনলেই পারতেন। এটা আফশোস। উনি যখন চলে গেলেন, তখন মনে হয়েছে, দেড় বছর সময় নষ্ট করেছি ওঁর সান্নিধ্য পাওয়া থেকে। 
 মিরাক্কেলের সেটে নতুন ঋতুদাকে খুঁজে পেলেন?‌
মীর:‌‌ হ্যাঁ। মেক–আপ রুমে কথা হয়েছিল। ঢোকার আগে ‘আসব’ প্রশ্ন করার পর যেভাবে ঋতুদা ‘‌আয়’‌ বলেছিলেন, সেই ‘‌আয়’‌–টার মধ্যে একটা অন্যরকমের স্বস্তি ছিল। আমরা একে–অন্যকে জড়িয়ে ধরেছিলাম। চোখ দিয়ে একটু জলও পড়েছিল। 
 বুদ্ধিজীবী নিয়ে এত রসিকতা। নিজেকে বুদ্ধিজীবি ভাবেন?‌
মীর:‌‌ (‌‌হেসে)‌ আমি নির্বোধ। অবোধ শিশু। 
 মীর কি কখনও ভোটে দাঁড়াবেন?‌
মীর:‌‌ জীবনে এখনও নিজের পায়ের ওপরই দাঁড়াতে পারলাম না!‌ ভোট তো সেই তুলনায় অনেক বড় ব্যাপার। 
 মীর কেন বাংলায় আটকে গেলেন?‌ কেন তিনি কপিল শর্মার জায়গা ছিনিয়ে নিতে পারলেন না?‌
মীর:‌‌ কপিল শর্মা ওই পরিবেশে বড় হয়েছে। যেখানে ভাষাগত সুবিধে আছে। আমি এখানে থেকে কাজ করব ভেবেছি। অনেকে সেফ খেলা বলবেন। যেভাবেই নিন, আমি এখানেই স্বচ্ছন্দ। মুম্বই গিয়ে স্ট্রাগল করলাম— এই রূপকথার গল্পটা আমি লিখতে চাইনি। 
 এখন আপনি ৪৪। সিনিয়র সিটিজেন হয়ে গেলে কি ‘মিরাক্কেল’ করবেন?‌ তখন কি শালীনতার শর্ত মনে উঁকি দেবে?‌
মীর:‌‌ মিরাক্কেলে যখন যাই, পাম্প দিয়ে নিজের বয়সটা অন্তত ১০ থেকে ১৫ বছর কমিয়ে নিই। তাছাড়া, টেলিভিশন বা ইন্টারনেটে এখন যেসব কনটেন্ট ঘোরে, আর রাখঢাকের কিছু নেই। 
 আইপিএল আর ‘‌ঝিঙ্কু মামণি’‌ কেসটা মনে আছে?‌
মীর:‌‌ নাহ্‌। যা বলেছিলাম, সেটা নিয়ে কোনও খেদ নেই। সুপারস্টার আসেনি বলে মঞ্চ জুড়ে যে চটুল বিষয় চলছিল, সেটা আমার একেবারেই ভাল লাগেনি। 
 মুসলিম হিসেবে কখনও বিদ্বেষের শিকার হয়েছেন?‌
মীর:‌‌ এক–আধবার হয়েছি। কিন্তু সেগুলো দেশের প্রতি গর্ব বা ভালবাসাকে ছাপিয়ে যাওয়ার মতো নয়। সেগুলো দুর্ঘটনার মতো। 
 সুর না থাকলে মীর অপূর্ণ?‌ নাকি হাসি না থাকলে?‌
মীর:‌‌ হাসি না থাকলে। মনে হয় নুন ছাড়া খাবার। হাসি ছাড়া যাঁরা থাকেন, তাঁদের থেকে আমি একটু দূরে থাকি।

জনপ্রিয়

Back To Top