আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ বর্ষার সঙ্গে কোথাও ‘‌শান্তি’‌ বা ‘‌আহ’ শব্দের একটা গভীর যোগাযোগ রয়েছে। তাই বোধহয় কালিদাস তাঁর ‘‌মেঘদূতম’‌–এ হোক বা রবীন্দ্রনাথ ‘‌ছায়া ঘনাইছে গান’–এ বারবার এই জ্বালা মেটানোর কথা বলেছেন। ‌কারওর কাছে বৃষ্টি প্রেম, কারওর কাছে আবার মন খারাপ। কিন্তু কেউ কেউ আবার বৃষ্টির সঙ্গে দু’‌বেলা খেতে পাওয়ার স্বপ্ন দেখে। এই বিচিত্র এক ঋতুকে উদ্‌যাপন করাটাও ভীষণ প্রয়োজনীয়। আর তাই ‘এসপিসিক্রাফট’ ও ‘ঘোষ কোম্পানি’–এর প্রয়াস বর্ষণমালা। রবীন্দ্রনাথের ভাষা যেমনভাবে এই প্রতিটি বর্ষায় আলাদা আলাদা অর্থ নিয়ে আসে, তেমনই জয় গোস্বামী, শক্তি চট্টোপাধ্যায়, সুনীল গাঙ্গুলির কথাগুলোও বর্ষার পরের রামধনুর মতো। তা বলে ভিনদেশি বর্ষার আমেজটাও বাদ পড়বে কেন!‌ তাই দেশ–বিদেশের বিভিন্ন ভাষায় কবিতা পাঠ হবে এই বর্ষণমালায়। পাঠ করবেন সোহিনী সেনগুপ্ত ও সুজয় প্রসাদ চ্যাটার্জি। অতুলপ্রসাদের গান থেকে ভানুসিংহের পদাবলী শোনা যাবে শিল্পী শ্রাবণী সেনের কণ্ঠে। সেলুলয়েডের ব্যোমকেশ-সত্যবতী অর্থাৎ আবির চ্যাটার্জি ও সোহিনী সরকারের যুগলবন্দী তে ধরা পড়বে বর্ষার আখ্যান। সমগ্র আলেখ্যটির সূত্রপাঠে থাকছেন স্বয়ং আবির চ্যাটার্জি। 
এই অনুষ্ঠানটি নিয়ে সোহিনী সরকার বললেন, ‘‌অনুষ্ঠানে থাকতে পেরেই ভাল লাগছে। এই পরিস্থিতিতে ডিজিটালেই অনুষ্ঠান করতে হচ্ছে। অনেক শুভেচ্ছা সকলকে।’‌ শিল্পী শ্রাবণী সেন বললেন, ‘‌বর্ষা আমার প্রিয় ঋতু। আর আমার নামের সঙ্গেও বর্ষার একটা যোগ আছে। তায় আবার, রবীন্দ্রনাথের গান। সুজয়ের অনুরোধ ফেলতে পারিনি। অনেক শুভকামনা রইল।’‌ 
অভিনেতা আবির চ্যাটার্জি ‘‌এসপিসিক্রাফট’‌ ও ‘‌ঘোষ কোম্পানি’‌–এর এই উদ্যোগকে স্বাগত জানালেন। সঙ্গে বললেন, এই অনুষ্ঠান তখনই সফল হবে, যদি দর্শক আমাদের পাশে থাকেন। বহু গুণী শিল্পী আছেন এই অনুষ্ঠানে।’‌ 
স্বয়ং সুজয়প্রসাদ চ্যাটার্জি জানালেন, ‘‌আবির এবং সোহিনী দু’‌জনেই আমার খুব স্নেহভাজন। আবির এই অনুষ্ঠানে সূত্রপাঠ করবেন। আর সোহিনী সেনগুপ্ত আমার প্রিয় মানুষ। শ্রাবণীদি শোনাবেন রবীন্দ্রনাথের গান। সকলের কাছে অনুরোধ, অনুষ্ঠানে যোগ দিন।’‌ 

আগামী ১১ জুলাই রাত আটটায় ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মে অনুষ্ঠিত হবে বর্ষণমালা।


টিকিট পাওয়া যাচ্ছে– https://www.musianamiles.com/borshonmala/
 

জনপ্রিয়

Back To Top