আজকালের প্রতিবেদন: স্যানিটাইজার, মাস্কের মতোই এখন বিক্রি বাড়ছে পিপিই কিটের। করোনা নিয়ে সচেতনতা বাড়ার জন্যই মানুষ এই কিট ব্যবহার করছেন বলেই জানান প্রিন্ট অফসেটের কর্ণধার তাপস রায়। ইতিমধ্যেই তাপসবাবু বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠানে অসংখ্য পিপিই কিট সরবরাহও করেছেন। তিনি জানান, শুধু সরকারি প্রতিষ্ঠানই নয়, এখনও করোনার কোনও ভ্যাকসিন আবিষ্কার হয়নি। তাই যেখানেই মানুষের সঙ্গে মানুষের যোগাযোগ বেশি হবে, সেখানেই ব্যবহার বাড়বে পিপিই কিটের। পিপিই কিটে মাথার টুপি, মাস্ক, সানগ্লাস, গ্লাভস, এককথায় গলা থেকে হাঁটু পর্যন্ত সুরক্ষিত জামা ও পায়ের জুতোর কভার রয়েছে। বারাসতের বহু ওষুধের দোকানে মাস্ক, স্যানিটাইজারের পাশাপাশি পিপিই কিটও ভালরকম বিক্রি হচ্ছে এখন।
বারাসত কলোনি মোড় সংলগ্ন আর কে মেডিক্যালের অন্যতম মালিক মৃন্ময় বিশ্বাস জানান, শিক্ষক থেকে শুরু করে বেসরকারি ল্যাব ও বিভিন্ন শপিং মলের কর্মীরাও নিজেদের সুরক্ষায় পিপিই কিট কিনছেন। উত্তর ২৪ পরগনা জেলা পরিষদের দলনেতা নারায়ণ গোস্বামী জানান, জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করছেন সাফাইকর্মী, স্বাস্থ্যকর্মীরা। তাই তাঁদের নিরাপত্তার জন্য পিপিই কিট ব্যবহার আবশ্যিক করা হচ্ছে। একই বক্তব্য বারাসতের বিশিষ্ট চিকিৎসক ডাঃ বিবর্তন সাহারও। ওষুধের দোকানের পাশাপাশি বিভিন্ন দোকানেও এখন নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের মতোই মিলছে পিপিই কিট।‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top