কিছু বাইকচালকের বেপরোয়া মনোভাব সব রাজ্যেই বড় সমস্যা। বাইক–‌বাহিনী, বাইক–‌রেস, লাগামহীন গতি। হেলমেট না পরে অনেকে চালান বাইক, সঙ্গের সন্তানের মাথা অরক্ষিত। বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি সমস্যার সমাধানে উঠেপড়ে লেগেছেন। গাড়ি, বাইকের চালকদের লাগামহীন আচরণে বিচলিত, ক্ষুব্ধ তিনি। প্রথম থেকে পুলিশকে সক্রিয় করা হয়েছে। অতিরিক্ত গতির জন্য ধরা হচ্ছে অনেককে, তবু কেউ কেউ বেলাগাম। মমতার ডাক:‌ সেফ ড্রাইভ সেভ লাইফ। অবিরাম প্রচার। বড়লোকের উড়নচণ্ডী যুবকদের জন্য ঘটছে দুর্ঘটনা। পুলিশ কড়া ধারা দিচ্ছে, বিত্তবান হওয়ার সূত্রে সুবিধা মিলছে না। বাইকচালকদের হেলমেট পরা যে বাধ্যতামূলক, তা শুধু বলা হচ্ছে না, দেখা হচ্ছে। সচেতনতার বার্তা। পৃথিবীর কোনও দেশে কি হেলমেট ছাড়া বাইক চালাতে দেওয়া হয়?‌ না। দেশের কোনও রাজ্যে কি হেলমেট ছাড়া বাইক চালানোর নিয়ম আছে?‌ না। হেলমেটহীন চালকদের শাস্তি বরাদ্দ সর্বত্র। কিছু রাজ্যে কড়াকড়ি কম, দুর্ঘটনা বেশি। কিন্তু, কেউ কি কখনও বলছেন, যে, হেলমেট পরা বাধ্যতামূলক থাকা উচিত নয়?‌ না। কেন বলবেন?‌ মাথা খারাপ হলে আলাদা কথা। সুস্থ মানুষ বলবেন না। কিন্তু, প্রিয় পাঠক, একটি রাজ্যে শহরে বাইকচালকদের হেলমেট পরা বাধ্যতামূলক নয়। যুক্তি ও কারণ?‌ সরকারের বক্তব্য, শহরে কতক্ষণই বা বাইক চালান সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি?‌ অল্প!‌ কে জানে, আমরা তো দেখি, অনেকে দিনে অন্তত ৫০ কিলোমিটার বাইক চালান। সেই রাজ্যের সরকার বলছে, বেশি পথ নয়। ধরুন, রাস্তায় সবজি কিনতে গেলেন, কোথায় রাখবেন হেলমেট?‌ দ্বিতীয়ত, মানুষ এটা পছন্দ করছেন না!‌ ‘‌পছন্দ’‌ করছেন না বলে হেলমেট বাধ্যতামূলক নয়!‌ আপনি জানতে চান, রাজ্যের নাম কী?‌ মডেল রাজ্য। গুজরাট।‌‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top