যারা বলে আমাদের দেশ সব কিছুতে পিছিয়ে পড়া, তারা ঠিক বলে না। যারা বলে আমাদের দেশ অনেক কিছুতে কম, তারা ঠিক বলে না। আমাদের দেশ অনেক কিছুতেই বেশি। দরিদ্র মানুষের সংখ্যা বেশি। গৃহহীনের সংখ্যা অনেক। বিনা চিকিৎসায় মৃত্যুর সংখ্যা মোটেও কম নয়। মাত্র একবেলা খেতে পান এমন মানুষ প্রচুর। কর্মহীনের সংখ্যা লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে। কলকারখানা বন্ধ হওয়ার সংখ্যা রোজই নিজেই নিজের রেকর্ড ভাঙছে। শ্রমিকের অভাব বাড়ছে। ফসলের ন্যায্য দাম না পাওয়ায় কৃষকের দুর্দশা প্রবল থেকে প্রবলতর হচ্ছে। ঋণ শোধ করতে না পারায় কৃষকের আত্মহত্যার ঘটনা বাড়ছে। 
রাষ্ট্রায়ত্ত শিল্প বেচে দেওয়ায় আমরা অনেক এগিয়ে গিয়েছি। এগিয়েছি গ্যাস, পেট্রোল, ডিজেলের দাম বাড়ানোয়। এরা কত যে বাড়ছে! একেবারে হুড়মুড়িয়ে!‌ জিনিসপত্রের দাম বাড়ানোয় আমাদের পারফরমেন্স দুরন্ত। মধ্যবিত্তের নাভিশ্বাস তুলে দেওয়ায় আমাদের রেখাচিত্র সর্বদা ঊর্ধ্বমুখী। প্রবীণদের সঞ্চয়ে  কোপ বসানোর ঘটনায় আমাদের কেউ টপকাতে পারবে না। ব্যাঙ্কের আর স্বল্প সঞ্চয়ের সুদ কমানোয়  আমরা নিশ্চয় বিশ্বে প্রথম। ধর্মীয় মেরুকরণে এখন আর আমাদের ধারেকাছে কেউ আসতে পারবে না। অসহিষ্ণুতার ঘটনা প্রচুর। আমরা এগিয়ে ভোটের আগে দেওয়া ‘‌অচ্ছে দিন’–‌এর প্রতিশ্রুতি ভঙ্গে। বেশির তালিকা আরও বড় করা যায়। তবে এইটুকুই কি যথেষ্ট নয়?‌ তাহলে কে বলে আমরা পিছিয়ে?‌ দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি নিজের নিরাপত্তা খরচ আকাশচুম্বী করে সেই ঐতিহ্যই রক্ষা করছেন। সম্প্রতি জানা গিয়েছে, তাঁকে নিরাপদে রাখতে রোজ এক কোটি বাষট্টি লক্ষ খরচ করা হয়। আমরা এখানেও এগিয়ে চলেছি। কী আনন্দ!‌     

জনপ্রিয়

Back To Top