‘‌ক্রোনোলজি’‌ আমরা এবার বুঝতে শিখে গেছি অমিত শাহ‌জি। আমরা মধ্যবিত্ত, গরিব মানুষেরা ব্যাঙ্কে টাকা রাখলাম, তারপর সেই টাকা থেকে ব্যাঙ্ক ঋণ দিল সন্দেহজনক কোম্পানিকে, সেই কোম্পানি আবার আপনাদের পার্টিকেই মোটা চঁাদা দিল। সেই কোম্পানি টাকা মেরে পালিয়ে গেল, কিংবা নিজেদের দেউলিয়া ঘোষণা করে দিল, আপনারা ফুলে ফেঁপে ঢোল, ওই তহবিল থেকে বিরোধী শাসিত রাজ্যের বিধায়ক কিনে নিলেন। সরকার আপনাদের হয়ে গেল। ‘‌ক্রোনোলজি’‌ তো এইরকমই মনে হচ্ছে। যে গণতন্ত্রের ঢক্কানিনাদ আপনাদের সভায় সভায় ধ্বনিত হয়, শোনা যায় ‘‌ভারত মাতা কী জয়’‌—  সেই গণতন্ত্রের কিছুই কি আর অবশিষ্ট আছে?‌ গুনা আসনে জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়াকে বিজেপি–‌র টিকিটে হারিয়েছিলেন তাঁরই গাড়ির চালক কে ডি যাদব। তিনি এখন বিজেপি–‌তে কোন মর্যাদায় প্রতিষ্ঠিত, লোকসভার ঈশান কোণে কোন আসনে বসেন তিনি?‌ তঁার সামনে দিয়ে মহারাজা ড্যাং ড্যাং করে মন্ত্রিত্বের শপথ নিতে যাবেন, আবার ধনপতিরা শাসন করবেন দেশ। মধ্যপ্রদেশের ৯৬ জন বিধায়কই তো কমল নাথের পক্ষে ছিলেন, কংগ্রেসের পক্ষে জ্যোতিরাদিত্যকে মুখ্যমন্ত্রীর গদিতে বসানো সম্ভব ছিল?‌ যতদূর জানা গেছে, ইয়েস ব্যাঙ্কের রানা কাপুর মুম্বইয়ের ‘‌সমুদ্রমহল’‌ প্রাসাদের ২৭ তলায় জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়ারই ভাড়াটিয়া ছিলেন। কাকতালীয়?‌ নাকি সব ধামাচাপা দিতে প্রিয়াঙ্কা গান্ধীর ছবি বিক্রির কাহিনি ছড়ানো হচ্ছিল?‌ ‘‌ক্রোনোলজি’‌ আমরা বুঝতে পারছি, পুরোটা না হলেও, কিছুটা। কেন আমাদেরই করের টাকায় বার ‌বার উপনির্বাচন করতে হবে?‌ কেন হাসির খোরাক হয়ে উঠেছে দলত্যাগ বিরোধী আইন?‌ কেন আপনাদের মুখে বারবার পরিবারতন্ত্রের নিন্দা শুনব আমরা, বলতে পারেন অমিত শাহজি?‌‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top