‌চন্দ্র অভিযান প্রাথমিক ‘‌ব্যর্থতা’‌–‌কে অতিক্রম করবে। আন্তর্জাতিক মহলে স্বীকৃত মহাকাশবিজ্ঞানী লিনেঙ্গার বলেছেন, ইসরোর অভিযান কার্যত সফল। গোটা দেশ বিজ্ঞানীদের পাশে দাঁড়িয়েছে। ওঁদের মেধা ও নিষ্ঠা সবার শ্রদ্ধা পেয়েছে। পাওয়ারই কথা। মমতা ব্যানার্জি প্রমুখ বিরোধী নেতারাও প্রকাশ্যে মুখর বিজ্ঞানী–‌বন্দনায়। এদিকে, দিলীপ ঘোষ আসরে নেমেছেন। বললেন, ‘‌মমতা ব্যানার্জি বাগড়া দিয়েছেন বলেই চন্দ্র অভিযান ব্যর্থ।’‌ সম্ভবত দিলীপবাবুই একমাত্র ভারতবাসী, যিনি অভিযানকে ব্যর্থ বলছেন। মমতাকে উঠতে–‌বসতে কুকথা বলা দিলীপ ঘোষের অভ্যেস। বদভ্যেস বলা যাবে না, এই কুকথার সূত্রেই তো তিনি রাজ্য সভাপতি। যেমন দল, তেমন নেতা। এবার আমরা একটু দেখি, শুনি, চন্দ্রযান–‌২ অভিযান সম্পর্কে কী বলেছেন বাংলার মুখ্যমন্ত্রী। বিধানসভায় এনআরসি প্রসঙ্গে বলার সময় জানান, দেশের যাবতীয় সমস্যা থেকে, যা সঙ্কটের পর্যায়ে, মানুষের নজর ঘুরিয়ে দেওয়ার লক্ষ্যেই এত প্রচার করা হচ্ছে চন্দ্র–‌অভিযান নিয়ে। তিনি ‘‌প্রচার’‌–‌এর কথা বলেছেন। দেশের সেনাযোদ্ধাদের বীরত্ব থেকে বিজ্ঞানীদের মেধা ও অধ্যবসায়কে তিনি ছোট করছেন না। করেন না। যে–‌রাতে ‘‌বিক্রম’‌–‌এর চন্দ্রাবতরণ করার কথা, বিকেলেই তিনি টুইট করেন, অভিযানের সাফল্য কামনা করে, ভারতীয় বিজ্ঞানীদের সেলাম জানিয়ে। শেষ মুহূর্তে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন, বিজ্ঞানীরা স্তব্ধ। মমতার বার্তা, স্বাধীনতার পর থেকেই ভারত জোর দিয়েছে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিতে, দেশের কর্ণধাররা উৎসাহ দিয়েছেন, বিজ্ঞানীরা মেধা ও প্রাণ ঢেলে দিয়েছেন, এই প্রক্রিয়া ব্যর্থ হতে পারে না। আমরা আশাবাদী।.‌.‌.‌ দিলীপবাবু বলুন তো, কোথায় ভুল বলেছেন মমতা ব্যানার্জি?‌ আর, ‘‌বাগড়া’‌ দিয়েছেন বলেই ‘‌ব্যর্থ’‌। প্রথমত, ব্যর্থ নয়। দ্বিতীয়ত, বিক্রম–‌এর ছবি পাওয়া গেল, তা কি মমতার প্রার্থনায়?‌ এবং শেষ কথা, দিলীপ ঘোষের কুকথা কি হতাশা থেকে, যে, বাংলায় কিছু করা যাবে না?‌  

জনপ্রিয়

Back To Top