মালেগাঁও বিস্ফোরণে অভিযুক্ত, জামিনে–‌থাকা সাধ্বী প্রজ্ঞা‌কে ভোপাল কেন্দ্রে দিগ্বিজয় সিংয়ের বিরুদ্ধে প্রার্থী করেছে বিজেপি। প্রার্থী হয়ে তিনি মুখর। প্রথমে বললেন, ২৬–‌১১–‌র মুম্বই হামলায় শহিদ এসটিএফ প্রধান হেমন্ত করকরে উচিত শাস্তি পেয়েছেন। মালেগাঁও বিস্ফোরণ কাণ্ডে তদন্তে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন করকরে। এবং নিখুঁত তদন্তের জেরে মামলায় প্রত্যক্ষভাবে জড়িত হন প্রজ্ঞা। জিজ্ঞাসাবাদের সময় নাকি প্রচণ্ড অত্যাচার করেছিলেন। তখন সাধ্বী অভিশাপ দেন, এক মাসের মধ্যে আপনার পরিবারকে অশৌচ পালন করতে হবে। অভিশাপের কী জোর, এক মাসের মধ্যেই মুম্বইয়ে ভয়ঙ্কর জঙ্গি হামলার মোকাবিলা করতে গিয়ে প্রাণ হারান বীর হেমন্ত করকরে। সেই অভিশাপের কথা মনে করিয়ে দিলেন প্রজ্ঞা। কী গর্ব!‌ দেশ তোলপাড়। দল বলল, দুঃখপ্রকাশ করে নাও। করে নিলেন। ক’‌দিন পরেই আবার:‌ গান্ধীকে হত্যা করে অন্যায় কিছু করেননি নাথুরাম গডসে!‌ গান্ধী–‌ঘাতকের প্রশস্তি করায়, বলা বাহুল্য, অস্বস্তিতে পড়ল ‘‌দেশপ্রেমিক’‌ বিজেপি। কী ব্যাখ্যা দিল?‌ শৃঙ্খলারক্ষা কমিটিকে বলা হল, যাচাই করে দেখুন, সময় দশদিন। ততদিনে ভোট হয়ে যাবে, নতুন সরকারের রূপরেখাও স্পষ্ট হয়ে যাবে। হয়তো একটু দুঃখপ্রকাশ!‌ অমিত শাহ ইতিমধ্যে বলেছেন কমল হাসন গডসেকে বলেছেন ‌স্বাধীন ভারতে প্রথম হিন্দু সন্ত্রাসবাদী। প্রজ্ঞার বক্তব্য হয়তো তারই প্রতিক্রিয়া!‌ মোদির মন্তব্য, কিছুতেই প্রজ্ঞাকে ক্ষমা করতে পারব না।‌ বেশ। প্রজ্ঞাকে বহিষ্কার করলেন না কেন?‌ যাঁকে ক্ষমাই করতে পারবেন না, তাঁকে লোকসভায় চাইছেন কেন?‌ ইতিহাস বলছে, গডসে আরএসএস–‌এর লোক ছিলেন। ভাই গোপাল গডসে লিখেছেন, আমরা সব ভাই আরএসএস–‌এই ছিলাম। গান্ধী হত্যার পর চাপ বাড়ে। নাথুরামকে বলতে হয়, আর তিনি সঙ্ঘে নেই। লুকোছাপার কী দরকার, গডসের মূর্তি বানালেই পারতেন মোদিরা!‌‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top