রামায়ণের ধীরোদাত্ত নায়ক রাম। ইতিহাস নয়, পুরাণ, মানুষের রচিত। অনেক বছর আগে ‘‌রামায়ণী কথা’‌ লিখেছিলেন দীনেশচন্দ্র সেন। প্রধান চরিত্রগুলোর ওপর আলোকপাত। মানুষ হিসেবে রামের ওপরে রেখেছিলেন ভরতকে। রামচন্দ্রের দোষও ছিল। ভরত ত্রুটিহীন। ’‌কৈকেয়ীর সহস্র দোষ ক্ষমার্থ, যখন ভাবি তিনি এইরূপ সুপুত্রের গর্ভধারিণী।’‌ রামায়ণ বা মহাভারত ইতিহাস নয়, দুর্ধর্ষ রচনা, যাতে প্রাচীন ভারতের রাজধর্ম থেকে বর্ণভেদ, সামাজিক নানা দিকের পরিচয় লিপিবদ্ধ। সাম্প্রতিককালে রাম চরিত্রের ওপর আলোকপাত, উল্লেখযোগ্য ব্যাখ্যা পাওয়া গেল নৃসিংহপ্রসাদ ভাদুড়ীর লেখায়। ধারাবাহিকভাবে দেখিয়েছেন, রাম কিছুতেই সর্বার্থে আদর্শ নায়ক নন। যা ইতিহাস নয়, তাকেই ইতিহাস বলে চাপিয়ে দিচ্ছে সঙ্ঘ পরিবার। অযোধ্যার ঠিক কোন জায়গায় জন্মেছিলেন, জন্মমুহূর্ত পর্যন্ত, ওরা ঠিক করে দিচ্ছে। অযোধ্যায় মিউজিয়াম হবে। তাতে রামের কীর্তি–‌ইতিহাস থাকবে। কে জানে, হয়তো রামচন্দ্রের তীরধনুকও রাখা হবে!‌ দেশ যে সঙ্কটের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে, তাতে ভ্রুক্ষেপ নেই। এরই মধ্যে, ৫ আগস্ট রামমন্দির নির্মাণের শুরু, ভূমিপুজো। সংবিধান–‌বর্ণিত ধর্মনিরপেক্ষ দেশের প্রধানমন্ত্রী সূচনার ‘‌নায়ক’‌। পুরোহিত থাকবেন, তবে আসলে ‘‌পুরোহিত’‌ স্বয়ং নরেন্দ্র মোদি। সরকারই নির্দেশ দিয়েছে, বর্তমান পরিস্থিতিতে জমায়েত করা যাবে না, ধর্মস্থানেও নিয়মবিধি মেনে চলতে হবে। অযোধ্যায় আমন্ত্রিত ২০০ জন। নিশ্চয় আরও অনেকে জড়ো হবেন। কী দৃষ্টান্ত পেশ করছেন স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী?‌‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top