সর্দার বল্লভভাই প্যাটেলের মূর্তি নিয়ে দেশ‌–বিদেশ জুড়ে সমালোচনার ঝড় উঠেছিল। মানুষটাকে নিয়ে নয়। সমালোচনা হয়েছে মূর্তির পেছনে ঢালা খরচ নিয়ে। বিরোধীরা তো মোদি সরকারকে এই বিষয়ে আক্রমণ করেছেই, নিন্দে শুনতে হয়েছে ঐতিহাসিকদের কাছ থেকেও। অনেকেই বলেছেন, এই মূর্তি আসলে প্রধানমন্ত্রীর দম্ভ, অহমিকার প্রকাশ। দেশকে সর্বদিক থেকে রসাতলে পাঠিয়ে মূর্তি দিয়ে তিনি উন্নয়নের ভঁাওতা দিচ্ছেন। সমালোচনার সময় বিজেপি নেতারা জানিয়েছিলেন, এ সবই মিথ্যা প্রচার। পৃথিবীর সবথেকে বড় মূর্তিটি বানিয়ে নরেন্দ্র মোদি দেশের মাথা উঁচু করছেন। হিংসুটেরা সহ্য করতে পারছে না। কিন্তু এবার বোমা ফাটিয়েছে কম্পট্রোলার অ্যান্ড অডিটর জেনারেল (‌ক্যাগ)‌। তারা সরকারকে তুমুল তিরস্কার করেছে। তিন হাজার কোটি টাকা খরচ করে কেন এই মূর্তি তৈরি করা হল, সে প্রশ্ন তুলেছে। ক্যাগ বলেছে, মূর্তি তৈরিতে যে সব সরকারি সংস্থা টাকা ঢেলেছে, তাদের টাকা খরচের কথা সমাজের কল্যাণের জন্য। মূর্তি তৈরি করে কোন সামাজিক দায়িত্ব তারা পালন করল? সেই খরচের জন্য ভর্ৎসনাও করেছে ক্যাগ। শুধু ভর্ৎসনা কেন? এই তিন হাজার কোটি টাকা দেশের মানুষের টাকা। এই বিপুল টাকা কেন এইভাবে খরচ হল, তার তদন্ত হওয়া উচিত। মানুষের টাকা আত্মসাৎ করা যদি দুর্নীতি হিসেবে ধরা হয়, মানুষের টাকা ব্যক্তি ও কোনও দলের উচ্চাশার জন্য খরচ করাকেও দুর্নীতি হিসেবে দেখা উচিত। মনে রাখতে হবে, টাকার পরিমাণ অনেক। বহু মানুষের প্রয়োজনকে অবহেলা করে সেই টাকা সরিয়ে নেওয়া হল। গোটা বিষয়টি নিয়ে তদন্ত হওয়া প্রয়োজন। সরকারে যাঁরা এই কাজে জড়িত, তাঁদের তদন্তের মুখে পড়া উচিত। মোদি সরকার একসময়ে গর্ব করে বলত, গায়ে কোনও কালি লাগেনি। এখন দামি কোটে তো শুধুই কালির ছিটে পড়ছে। জনগণের টাকা নি য়ে যেভাবে নয়ছয় করা হল, তার পেছনে থাকা প্রকৃত সত্য দেশের মানুষের জানার অধিকার রয়েছে।

জনপ্রিয়

Back To Top