ইউএপিএ দেওয়া হয়েছে ওঁদের নামে। বলেই দেওয়া হয়েছে, খুনের চক্রান্তের মামলা। কাকে খুনের চক্রান্ত?‌ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি!‌ ভীমা–‌কোরেগাঁও কাণ্ডে চূড়ান্ত সাম্প্রদায়িকতাবাদীরা যুক্ত ছিলেন। দু–‌একজন সগর্বে দাবিও করেছেন। তাঁদের কেশাগ্র স্পর্শ করা হয়নি। দলিত সংগঠকদের মধ্যে কয়েকজনকে দ্রুত গ্রেপ্তার করা হয়েছিল অবশ্য। এবং তাঁদের মধ্যে একজনের কাছে নাকি একটা মারাত্মক চিঠি পাওয়া গেছে। প্রধানমন্ত্রীকে খুনের চক্রান্ত। তাতে নাম পাওয়া গেছে কাদের?‌ কবি, অধ্যাপক ভারভারা রাও। আইনজীবী, সমাজকর্মী সুধা ভরদ্বাজ। বিখ্যাত সমাজকর্মী গৌতম নওলাখা। আইনজীবী, লেখক অরুণ ফেরেরা। লেখক ভারমন গঞ্জালভেস। আইনজীবী সুজান আব্রাহাম। সমাজতত্ত্ববিদ আনন্দ তেলতুম্বে। সমাজকর্মী ফাদার স্ট্যান স্বামী। এঁরা সকলেই নিবেদিতপ্রাণ মানবাধিকার কর্মী। লেখেন, বলেন, লড়েন সামাজিক অন্যায়ের বিরুদ্ধে। অভিযোগ, এঁরা মাওবাদীদের প্রতি সহানুভূতিশীল। এই সহানুভূতির জন্য গ্রেপ্তার!‌ যাঁরা জীবনে কাউকে একটা চড়ও মারেননি, তাঁরা নাকি প্রধানমন্ত্রীকে খুনের চক্রান্তে লিপ্ত!‌ ভারভারা রাওয়ের বোনের বাড়িতেও হানা দিয়েছে পুলিস। জানতে চেয়েছে, ব্যাপারটা কী?‌ মাওবাদী বইপত্র রয়েছে কেন?‌ বোনের স্বামীও নাকি গ্রেপ্তার হওয়ার মুখে। যে–‌ঘটনার সূত্রে এভাবে ঝাঁপিয়ে পড়ল রাষ্ট্র, মোদি–‌রাষ্ট্র, তাতে প্রত্যক্ষভাবে হিংসায় জড়িত ছিলেন যে ধর্মান্ধরা, তাঁরা গায়ে হাওয়া লাগিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। ধরা হয়েছে দলিত সংগঠকদের, মামলা হয়েছে গুজরাটের দলিত নেতা, বিধায়ক জিগনেস মেবানির নামে। ছাপ্পান্ন ইঞ্চি ছাতি এত ঘাবড়ে গেলেন কেন?‌ দেশের নানা প্রান্তে দলিত–‌নিধন অব্যাহত। সংখ্যালঘু–‌নিধন চলছেই। শিক্ষা ব্যবস্থাকে তছনছ করে সাম্প্রদায়িক রঙে মুড়ে দেওয়ার চেষ্টা চালু। গরিব মানুষ প্রতিদিনের অসম যুদ্ধে ক্ষতবিক্ষত। ভীমা–‌কোরেগাঁও যে রাজ্যে, সেই মহারাষ্ট্রে চরম দুর্নীতিতে আত্মঘাতী বহু কৃষক। কিছু সরাসরি খুন। কিছু খুনের চক্রান্ত। কেউ গ্রেপ্তার নয়। কিন্তু মামলাটা হবে। ২০১৯ সালে লোকসভা নির্বাচনে হবে খুন ও খুনের চক্রান্তের মামলা। শুনানি। এবং রায় দেবেন জনগণ। অপরাধী মোদি তৈরি তো?‌

জনপ্রিয়

Back To Top