প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জি কোভিড আক্রান্ত। তাছাড়া, অস্ত্রোপ্রচারও হল। শ্রদ্ধেয় রাষ্ট্রনায়কের দ্রুত আরোগ্য কামনা করি। একটা ব্যাপার বোঝা যাচ্ছে, সম্ভবত কেউ নিরাপদ নন। ধনী–‌দরিদ্র, বিশিষ্ট–‌সাধারণ, তফাৎ হচ্ছে না। যথাবিহিত সতর্কতা সত্ত্বেও কেউ সংক্রমিত হতে পারেন। হতে পারে, অন্য কোনও ব্যক্তির অসাবধানতার জন্য সংক্রমণ। রাস্তাঘাটে যা দেখা যাচ্ছে, বেশ কিছু লোক সতর্কতা বিধি মানছেন না। মাস্ক গলায় বা থুতনিতে। বাজারে, পথে দূরত্ব বিধি মানার ইচ্ছা নেই। বারবার হাত ধোওয়াতেও মন নেই। ভাবছেন, ‘‌যা হওয়ার হবে’‌। বা, ‘‌আমার হবে না!‌’‌ সরকার তুমুল প্রচার করে যাচ্ছে। ডাক্তাররা স্পষ্ট করে বলছেন সতর্কতা বিধির কথা। সংবাদমাধ্যমে প্রায় প্রতিদিন লেখা হচ্ছে, কী করতে হবে, কী নয়। যঁারা কিছুতেই শুনছেন না, পুলিশ বোঝানোর জন্য, বাড়ি ফেরানোর জন্য পথে। মুশকিল, এই চরম দুর্দিনেও অজ্ঞতার, কুসংস্কারের চর্চা হচ্ছে। দিল্লিতে হিন্দু মহাসভা মহা সমারোহে গোমূত্র যজ্ঞ করে। গোমূত্র খেলেই নাকি নিরাপদ। বোতলে গোমূত্র বিক্রি। শিলের ওপর নোড়া দঁাড় করিয়ে রাখলে নিরাপদ, রটল। ২০ মিনিট রোদে দঁাড়ালে নিরাপদ, বলেন এক বিজেপি নেতা। রামমন্দির নির্মাণ শুরু হলেই মুক্তি, বললেন একাধিক নেতা। কেন্দ্রীয় মন্ত্রী অর্জুনরাম মেঘাওয়াল ‘‌ভাবিজি পাপড়’‌–‌এর ছবি দিয়ে বললেন, এই পাপড় খেলেই হল, চিন্তা নেই। সেই মেঘাওয়ালই কোভিডে আক্রান্ত। ভাবিজি পাপড় খাচ্ছিলেন না?‌ আমরা কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর দ্রুত আরোগ্য কামনা করি। সুস্থ হয়ে বাড়ি ফেরার পর, বলবেন কি, পাপড়–‌নিদান নিদারুণ ভুল ছিল?‌ অজ্ঞতার, কুসংস্কারের অন্ধকারে ডুবে থাকা কি চলতে থাকবে?‌‌‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top