আজকালের প্রতিবেদন, মুম্বই: কিছুদিন ধরেই কানাঘুষো শোনা যাচ্ছে, ব্রিটিশ টেলিকম সংস্থা ভোডাফোন ভারতে তাদের ব্যবসা গুটিয়ে ফেলবে। প্রতি মাসে লাখ লাখ গ্রাহকের ভোডাফোন ছেড়ে অন্য মোবাইল পরিষেবা সংস্থার খাতায় নাম লেখানোর ধাক্কা তারা আর সামলাতে পারছে না। যদিও আইডিয়া–ভোডাফোন সংযুক্ত সংস্থাটির পক্ষ থেকে একে নিছকই গুজব বলে দাবি করা হয়েছিল, কিন্তু ভোডাফোনের সিইও নিক রিড মঙ্গলবার যা বললেন, তাতে বিশেষ ভরসার কারণ দেখা যাচ্ছে না। রিড বলেছেন, ভারতের পরিস্থিতি ভোডাফোনের জন্যে এক নেতিবাচক বোঝা‌। ‘‌নেগেটিভ বার্ডেন’‌। (‌অথচ)‌ ভারতে ভোডাফোনের বিনিয়োগ কৌশলে কোনও ভুল নেই। বরং প্রচুর অর্থ ভারতে এর মধ্যেই বিনিয়োগ করেছে ভোডাফোন। এবং তারা মনে করে, ভারতে বাণিজ্যিক সম্ভাবনা এখনও যথেষ্ট ভাল। কিন্তু ভারতে ভোডাফোনের ভবিষ্যৎ সম্পর্কে নিক রিডের মন্তব্য— এই পরিস্থিতিকে ‘‌সঙ্কটজনক’‌ বলা যেতে পারে!‌ বাণিজ্যের মাপে প্রায় দৈত্যাকার ব্রিটিশ সংস্থাটির কর্তা এই মন্তব্যে দুটি দিকে ইঙ্গিত করে থাকতে পারেন। এক, খুব সোজা কথায় বলতে হলে, ভারতে প্রচুর বিনিয়োগ করেছে ভোডাফোন, কিন্তু তাতে লাভ তো হচ্ছেই না, উল্টে লোকসান হচ্ছে। ভারতের ব্যবসা ভোডাফোনের কাছে বোঝা হয়ে দঁাড়িয়েছে। আর দ্বিতীয় ইঙ্গিত লুকিয়ে থাকতে পারে ওই শেষ মন্তব্যটির মধ্যে যে, ভারতে এখনও বাণিজ্যিক সম্ভাবনা বিস্তর। কিন্তু ভোডাফোন সেই বাজার ধরতে পারছে না। প্রচুর অর্থলগ্নি এবং বিনিয়োগ কৌশল ঠিক থাকা সত্ত্বেও। যে কারণে ভারতে ভোডাফোনের ভবিষ্যৎ সঙ্কটজনক।
গত মাসেই ভোডাফোনের ভারত ছাড়ার গুজবের প্রেক্ষিতে সংস্থাটি জানিয়েছিল, তারা এখনই ভারত থেকে লগ্নি তুলে নিতে চায় না। তবে এই প্রতিকূল পরিস্থিতি পার করতে ভোডাফোন ভারত সরকারের সাহায্য চায়। এবং গুজব ছড়ানোর যাবতীয় দায়, রীতিমাফিক ‌ভারতীয় সংবাদ মাধ্যমের একাংশের ওপর চাপানো হয়েছিল। যে তারাই নাকি বিদ্বেষপ্রসূত গুজব ছড়াচ্ছে। নিক রিড এদিন জানালেন, ভোডাফোন ভারত সরকারের সঙ্গে আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছে, যাতে পরিস্থিতির গুরুত্ব বোঝানো যায়। ঠিক কী ধরনের সরকারি সাহায্য চাইছে ভোডাফোন?‌ রিড বলছেন, টেলিকম নিয়ন্ত্রক সংস্থার নিয়মকানুন যেন বাণিজ্যের পক্ষে সহায়ক হয়, পরিষেবার দাম নির্ধারণ যেন এমনভাবে হয় যে, ব্যবসা চালানো সম্ভব হয়— এসব নিয়েই কথা হচ্ছে। উল্লেখ্য, লাইসেন্স ফি, মোবাইল স্পেকট্রাম ব্যবহারের খরচ এবং টেলিকম সংস্থাগুলির দেয় রাজস্বের হিসাব করার যে পদ্ধতি ভারত সরকার নিয়েছে, সম্প্রতি সুপ্রিম কোর্ট তাতে সায় জানিয়েছে। যার জেরে প্রায় ৪০ হাজার কোটি টাকা বকেয়া হয়েছে ব্রিটিশ টেলিকম সংস্থা ভোডাফোন ও তাদের ভারতীয় সহযোগী আইডিয়া সেলুলার–এর ওপর।‌

জনপ্রিয়

Back To Top