আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ চাপে পড়লেই বাপ বলে ওঠে অনেকে। সে যত বড়ই কেউকেটা হোক না কেন। এখন এমন নজির দেখা গেল ঋণখেলাপি শিল্পপতি বিজয় মালিয়ার মধ্যে। তাঁর ওপর চাপ বেড়েই ‌চলেছে। আর বিদেশে থেকে তা সামাল দেওয়া‌ যাচ্ছে না। তাই এবার দেশে ফিরতে চান ঋণখেলাপী শিল্পপতি বিজয় মালিয়া। এমনটাই দাবি এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেটের। 
সম্প্রতি ইডি এই শিল্পপতির বিরুদ্ধে ফাজিটিভ ইকোনমিক অফেন্ডার্স অর্ডিন্যান্স অনু‌যায়ী ব্যবস্থা নিয়েছে। ফলে আইনের ফাঁস আরও তীব্র হয়েছে। পাশাপাশি গত মাসেই ইডি মালিয়ার বিরুদ্ধে আদালতে ‌যায়। সেখানে হলফনামা দিয়ে আবেদন করা হয় মালিয়ার ১২ হাজার ৫০০ কোটি টাকার সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করার নির্দেশ দিক আদালত। কারণ শর্তসাপেক্ষে ফাজিটিভ অফেন্ডার্স অর্ডিন্যান্স অনু‌যায়ী কোনও ঋণখেলাপী ব্যক্তির সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করা যায়। তাই বেশ চাপে পড়ে গিয়েছেন ৬২ বছর বয়সের এই ঋণখেলাপি শিল্পপতি। তাই এখন দেশে ফিরতে চান বলে তাঁর আর্জি মনে করছেন অনেকে। 
অন্যদিকে তিনি দেশে ফিরতে চান এবং তাঁর পড়ে থাকা ব্যাঙ্ক ঋণ শোধ করতে চান বলেও জানিয়েছেন। তিনি তাঁর সব বকেয়া মিটাতে চেয়ে প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি লিখেছিলেন। কিন্তু সেই চিঠির কোনও উত্তর মেলেনি। ২০১৬ সালের ১৫ এপ্রিল মালিয়া ওই চিঠি লেখেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবং অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলিকে। পাশাপাশি মালিয়া টুইট করে জানান তিনি কর্নাটক হাইকোর্টে আপিলও করেছেন ‌যে তিনি তাঁর ১৩ হাজার ৯০০ কোটি টাকার সম্পত্তি বিক্রি করে দিতে চান। তার অনুমতি দেওয়া হোক। 

জনপ্রিয়

Back To Top