আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌  ‌‌‌চীনের শিনজিয়াং স্বশাসিত প্রদেশ থেকে কয়েক ধরনের বস্ত্র আমদানির উপর নিষেধাজ্ঞা চাপিয়েছে আমেরিকা। যার সুফল মিলতে পারে ভারতের বস্ত্র কারখানাগুলির। এমনটাই মনে করছে ইনভেস্টমেন্ট ইনফর্মেশন ফার্ম বা আইসিআরএ। ওই এলাকায় অবৈধভাবে অমানবিক উপায়ে শ্রমিক নিয়োগ হচ্ছে, এই অভিযোগে, চলতি সপ্তাহের শুরুতেই এই নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে আমেরিকা। শিনজিয়াং প্রদেশের বেশিরভাগ উৎপাদিত পণ্যের উপর নিষেধাজ্ঞার নির্দেশিকা থাকলেও আপাতত, কয়েকটি পণ্যেই সেই নিষেধাজ্ঞা বলবৎ করা হয়েছে। তার মধ্যে চুলের জন্য ব্যবহৃত জিনিসপত্র, কম্পিউটারের যন্ত্রাংশ ছাড়াও রেডিমেড পোশাক এবং তুলো উৎপাদনে নিষেধাজ্ঞা চাপিয়েছে আমেরিকা। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, সারা চীনের ৮০–৮৫ শতাংশ তুলো শুধু শিনজিয়াং–এই উৎপন্ন হওয়ার কারণে এই অঞ্চল বিশ্বের অন্যতম বড় তুলো উৎপাদনকারী অঞ্চল।
আইসিআরএ–র সিনিয়র ভিপি জয়ন্ত রায় বললেন, এখনই সব পণ্যের বিষয়ে বোঝা না গেলেও, সারা বিশ্বের বস্ত্র শিল্পে যে একটা বদল আসতে পারে সেব্যাপারে তাঁরা নিশ্চিত। কারণ, সারা বিশ্বের ৩৫ শতাংশ রেডিমেড পোশাক এবং তিন–চতুর্থাংশ তুলো শিনজিয়াং থেকেই রপ্তানি হত। যদি আমেরিকা এই নিষেধাজ্ঞা আরও বাড়িয়ে দেয় তাহলে বস্ত্র শিল্পে ভালোরকমের পরিবর্তন আসবে। যা ভারতের পক্ষে মঙ্গলকর বলেই অনুমান আইসিআরএ কর্তার। করোনাভাইরাসের কারণে ইতিমধ্যেই চীন থেকে যে সব দেশগুলি তুলো বা রেডিমেড পোশাক আমদানি করত তারা ভারতের দিকে মুখ ঘুরিয়েছে। এই হাওয়া দেশের বস্ত্র শিল্পে নতুন উৎসাহ জোগাবে, আশা জয়ন্ত রায়ের।
ছবি:‌ এএনআই  

জনপ্রিয়

Back To Top