সংবাদ সংস্থা: আমেরিকা থেকে আমদানি করা ৮০০ সিসি–র ওপর মোটরবাইকে ৫০%‌, তাজা আপেলে ২৫%‌, আমন্ড এবং আখরোটে ২০%‌ শুল্ক বসাল ভারত। এরকম মোট ৩০টি মার্কিনি পণ্যের ওপর বর্ধিত শুল্ক আরোপিত হল, এতদিন যেগুলো শুল্ক–ছাড়ের আওতায় ছিল। এই সিদ্ধান্তের কথা বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থা ডব্লুটি‌ও–কে প্রথামাফিক জানিয়ে দিয়েছে ভারত। বর্ধিত শুল্ক চালু হয়ে যাবে ২১ জুন থেকে। এই খাতে ২৩ কোটি ৮০ লক্ষ মার্কিন ডলার বাড়তি আদায় হবে ভারতীয় শুল্ক দপ্তরের। প্রায় একই পরিমাণ অর্থ আমেরিকা আদায় করছে ভারতের কিছু ইস্পাত পণ্যের ওপর ২৫%‌ এবং অ্যালুমিনিয়াম পণ্যের ওপর ১০%‌ বর্ধিত শুল্ক বসিয়ে। আমেরিকা এ বছরের মার্চ থেকে এই শুল্কবৃদ্ধি আরোপ করেছে। ভারতের শুল্কবৃদ্ধির সিদ্ধান্ত যে তারই পাল্টা ব্যবস্থা, সেটাও ডব্লু‌টি‌ও–কে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। বলা হয়েছে, আমেরিকা নিজের বাণিজ্যিক স্বার্থ রক্ষার ওই সিদ্ধান্ত যতদিন না প্রত্যাহার করছে, ওই ৩০টি মার্কিন পণ্যের ওপর বর্ধিত শুল্ক বহাল থাকবে। মার্কিনি মোটরবাইক, আপেল, আমন্ড, আখরোট ছাড়াও তালিকায় আছে কড়াইশুঁটি, মটর ডাল, গম, সয়াবিন তেল, রিফাইন্ড পাম অয়েল, কোকো পাউডার, চকোলেট ইত্যাদি পণ্য। প্রসঙ্গত, ভারত এই প্রথম কোনও দেশের বর্ধিত শুল্কের পাল্টা শুল্ক বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত নিল। ক’‌দিন আগেই কানাডায় জি–সেভেন বৈঠকের অবসরে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প এই নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছিলেন, সবাই মার্কিনি পণ্যের ওপর আমদানি শুল্ক বসিয়ে আমেরিকাকে লুঠতে চায়। উদাহরণ হিসেবে তিনি নির্দিষ্টভাবে ভারতের কথাও বলেছিলেন এবং হুমকি দিয়েছিলেন, এবার আমেরিকাও পাল্টা ব্যবস্থা নেবে। আর দু’‌দিন আগেই বেশ কিছু চীনা পণ্যের ওপর বাড়তি আমদানি শুল্ক বসিয়ে কার্যত এক বাণিজ্যযুদ্ধ শুরু করে দিয়েছেন। চীনও সঙ্গে সঙ্গে প্রত্যাঘাত করেছে মার্কিন পণ্যের ওপর বাড়তি শুল্ক বসিয়ে। এবার ভারতও সেই পথেই এগোল।

জনপ্রিয়

Back To Top