আজকাল ওয়েবডেস্ক: ঋণগ্রহীতাদের জন্য সুখবর। ২৫ বেসিস পয়েন্ট বা ০.‌২৫ শতাংশ রেপো রেট কমাল রিজার্ভ ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়া বা আরবিআই। এর ফলে ৬.‌৫ শতাংশের বদলে রেপো রেট হল ৬.‌২৫ শতাংশ। 
অর্থনৈতিক মহল বলছে, কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্ক রেপো রেট কমানোর ফলে বাড়ি এবং গাড়ির জন্য ঋণগ্রহীতাদের অনেক কম ইএমআই দিতে হবে। ঋণ সস্তা হয়ে যাওয়ায় শোধ করার ক্ষেত্রেও সুবিধা হবে। বাণিজ্যিক ব্যাঙ্কগুলিকে অল্প সময়ের জন্য যে সুদে আরবিআই টাকা ধার দেয় সেটাকেই বলে রেপো রেট। অনুকূল আবহাওয়া এবং পরিস্থিতির উপর ভর করে ২০১৯–র ৩১ মার্চের মধ্যে মুদ্রাস্ফীতি ২.‌৮ শতাংশে নামিয়ে আনা হবে বলে মনে করছে কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্ক।
বৃহস্পতিবার আরবিআই–এর গভর্নর শক্তিকান্ত দাশ সাংবাদিক সম্মেলনে বললেন, ‘‌আমরা দেশের বর্তমান অবস্থা সারাক্ষণ নজরে রেখেছি। নগদে কোনও ঘাটতি হলেই সেই মতো প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেব। ২০১৯–২০–র জিডিপি উৎপাদন ৭.‌৪ শতাংশ। ২০১৯–২০ অর্থবর্ষের প্রথম ষাণ্মাসিকে মুদ্রাস্ফীতি হবে ৩.‌২–৩.‌৪ শতাংশ এবং ত্রৈমাসিকে হবে ৩.‌৯ শতাংশ। মুদ্রাস্ফীতিকে ৪ শতাংশের মধ্যেই বেঁধে রাখা যাবে বলে মনে করছি। পরিকাঠামোয় ব্যয়ের ফলে বিনিয়োগে সুবিধা মিলছে। বিশ্ববাজারে চাহিদা কম থাকার কারণে বছর প্রতি রপ্তানির ক্ষেত্রে গত নভেম্বর–ডিসেম্বরে সেভাবে আয় বাড়েনি। কৃষিঋণের পরিমাণ এক লক্ষ থেকে বাড়িয়ে ১‌৬০০০০০ করা হচ্ছে। প্রান্তিক কৃষিব্যবস্থা, মুদ্রাস্ফীতি এবং ছোট কৃষকদের কথা চিন্তা করেই ৬০০০০ টাকা বাড়ানো হয়েছে।’‌   
সব শহুরে কো–অপারেটিভ ব্যাঙ্কগুলিকে একটি ছাতার তলায় আনার প্রস্তাব পেয়েছে আরবিআই। বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে দেখছে আরবিআই। খুব শীঘ্রই এব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেবে তারা বলে জানিয়েছে আরবিআই।

জনপ্রিয়

Back To Top