আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ ‘‌মূল্যায়ণ সংস্থা যা বলছে বলুক, আপনারা অর্থনীতিতে মন দিন।’‌ পরামর্শ দিলেন রিজার্ভ ব্যাঙ্কের প্রাক্তন গভর্নর রঘুরাম রাজন। করোনা সঙ্কট কাটলে কীভাবে অর্থনীতির চাকায় গতি ফেরানো সম্ভব, সেই চিন্তা করুক নীতিপ্রণেতারা, গ্লোবাল মার্কেট ফোরামের একটি অনুষ্ঠানে বললেন অর্থনীতিবিদ। তিনি বলেন, মধ্যমেয়াদি পরিকল্পনা করে পা ফেলার ইঙ্গিত দিয়ে বিনিয়োগকারীদের আকৃষ্ট করুক ভারত। এই সময়ে দাঁড়িয়ে অনেক দেশি–বিদেশি মূল্যায়ণকারী এবং ব্রোকারেজ সংস্থা ভারতের অর্থনীতি নিয়ে যা পূর্বাভাষ দিয়েছে, তাতে ইতিমধ্যেই কেন্দ্রের মোদি সরকারের অন্দরে কাঁপুনি ধরেছে। আত্মনির্ভর ভারত প্রকল্পের আওতায় প্রায় ২১ লক্ষ কোটি টাকার আর্থিক প্যাকেজ ঘোষণার পরেও অর্থনীতির পালে হাওয়া লাগছে না। জুনের তুলনায় জুলাই–তে উৎপাদন আরও কমেছে। চাহিদা তো বাড়েইনি। ক্ষত আরও গভীর হচ্ছে, সেই ইঙ্গিত দিয়েই রাজন বলেন, অতিমারীর ধাক্কায় যারা সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত, তাদের হাতে টাকা পৌঁছচ্ছে কিনা, সেটা আগে দেখুক সরকার। ব্যবসা ফের দাঁড় করাতে যাদের সত্যিই ক্রেডিটের প্রয়োজন, তারা সুফল পাচ্ছে কিনা, সেটা জানা জরুরি। রাজন বলছেন, প্যাকেজ ২১ লক্ষ কোটি টাকার হলেও জিডিপি–র মাত্র ১%–এর সমান পরিমাণ নগদ ছোট–মাঝারি শিল্প এবং গরিবদের জন্য খরচ করছে সরকার! আরবিআই–এর প্রাক্তন গভর্নর মনে করেন, অর্থনীতির পালে হাওয়া দিতে সরকার এবং শীর্ষ ব্যাঙ্ক‌ যতই একজোট হয়ে কাজ করুক না কেন, ‘‌বল’‌ কিন্তু কেন্দ্রের দিকেই!‌ ফলত যাবতীয় জরুরি এবং প্রয়োজনীয় সিদ্ধান্ত মোদি সরকারকেই নিতে হবে। দু’‌মাস কড়া লকডাউন রেখেও কাজের কাজ কিছুই হয়নি। লকডাউন শিথিল হতেই লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে সংক্রমণ। এর ফলে অর্থনীতির ক্ষত শুকোতে আরও সময় লাগবে, আশঙ্কা রঘুরাম রাজনের। 

জনপ্রিয়

Back To Top