আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ করোনা, লকডাউন, আর্থিক মন্দা— এসব কিছুই প্রভাব ফেলতে পারেনি ধনকুবেরদের ওপর। ভারতে মুকেশ আম্বানির সম্পত্তি বৃদ্ধির পর অ্যামাজন কর্তা জেফ বেজোস। এখন তাঁর মোট সম্পদের পরিমাণ ১৭ হাজার ১৬০ কোটি ডলার। বুধবার আমাজনের শেয়ারের দাম ৪.৪ শতাংশ বৃদ্ধি পায়। তার আগে বেজোসের মোট সম্পত্তি ছিল  ১৬ হাজার ৭৭০ কোটি ডলার। 
করোনার কারণে গোটা দুনিয়াতেই মানুষ ঘরবন্দি। এই অবস্থায় অনলাইনে কেনাকাটা বেড়ে গেছে। সে জন্যই জেফের সম্পত্তি এতটা বেড়েছে। আমাজন একাই এ বছরে পাঁচ হাজার ৬৭০ কোটি ডলারের ব্যবসা করেছে। অথচ পরিসংখ্যান বলছে, গোটা দুনিয়াতে চাকরি খুইয়েছেন এক কোটি মানুষ। না খেতে পেয়ে মরছেন লাখ লাখ। এ হেন আর্থিক মন্দার মধ্যে শিল্পপতিদের এই উত্থান আরও একবার বৈষম্যকেই প্রকাশ করছে। দুনিয়ার প্রথম ৫০০ জন ধনীর হাতেই রয়েছে সাড়ে পাঁচ লক্ষ কোটি ডলারেরও বেশি। 
অন্য দিকে, জেফের প্রাক্তন স্ত্রী ম্যাকেঞ্জি বেজোসেরও সম্পত্তির পরিমাণ বেড়েছে। বিবাহবিচ্ছেদের মামলার কারণে মাকেঞ্জিকে সংস্থার তিন ভাগের এক ভাগ ছেড়ে দিতে হয়েছিল জেফকে। বিবাহবিচ্ছেদের পর তাঁর প্রাক্তন স্ত্রী আমাজনের ৪ শতাংশ শেয়ারের অধিকারী হন। বর্তমানে তাঁর মোট সম্পত্তির পরিমাণ পাঁচ হাজার ৬৯০ কোটি ডলার। ব্লুমবার্গ বিলিয়নেয়ার ইনডেক্স-এ ম্যাকেঞ্জি দ্বাদশ ধনীতম ব্যক্তি। বিশ্বের দ্বিতীয় ধনী মহিলা হিসেবে উঠে এসেছেন। তাঁর আগেই রয়েছেন ল’রিয়েল সংস্থার মালিক ফ্যাঙ্কোয়েস বেটেনকোর্ট মেয়ার্স।
তবে বেশ কিছু সংস্থা ক্ষতির মুখেও পড়েছে। সম্পত্তির পরিমাণ কমেছে স্পেনের অ্যামানিকো ওর্তেগার, ওয়ারেন বাফে এবং বার্নার্ড আরনল্টের। তবে লাভবান হয়েছে টেসলা এবং জুম ভিডিয়ো কমিউনিকেশনস।

জনপ্রিয়

Back To Top