রাজীব চক্রবর্তী‌, দিল্লি: অর্থনীতির শ্লথগতি নিয়ে বিশেষজ্ঞরা চিন্তিত। কিন্তু সঙ্কটের কথা মানতে নারাজ কেন্দ্রীয় সরকার। তবে, মুখে না মানলে কী হবে, বেহাল অর্থনীতির হাল ফেরাতে কিছুটা অন্তত চাঙ্গা করতে চুল ছিঁড়ছেন রাইসিনা হিলসের নর্থ ব্লকের কান্ডারিরা। কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন গত কয়েক মাসে কিছু পদক্ষেপ করেছেন। তেমন সুফল মেলেনি। এবার আরও বড় পদক্ষেপ করতে চলেছে নরেন্দ্র মোদি সরকার। সীতারামন জানিয়েছেন, চলতি ডিসেম্বরে একগুচ্ছ নতুন পরিকাঠামো প্রকল্পের ঘোষণা করা হতে পারে।
আগামী ৫ বছরে প্রকল্পগুলির জন্য ব্যয়বরাদ্দ হতে পারে ১.‌৩ ট্রিলিয়ন ডলার বা ১০০ লক্ষ কোটি টাকা। অর্থমন্ত্রী মনে করছেন, এই ঘোষণায় গতি আসবে দেশের অর্থনীতিতে। বাড়বে বৃদ্ধির হার। মুম্বইয়ে এক বাণিজ্য সম্মেলনে এ কথা জানিয়েছেন সীতারামন। তাঁর মন্ত্রকের উচ্চপদাধিকারীরা খুব শিগগিরই প্রকল্পগুলি চূড়ান্ত করবেন বলে জানিয়েছেন তিনি। নির্মলার আশা, ১৫ ডিসেম্বরের আগেই কমপক্ষে ১০টি নতুন প্রকল্প ঘোষণা করা হবে।
উল্লেখ্য, অর্থনৈতিক বৃদ্ধিকে চাঙ্গা করা এবং বিদেশি বিনিয়োগ আনার প্রতিশ্রুতি দিয়ে ২০১৪ সালে ক্ষমতায় এসেছিলেন নরেন্দ্র মোদি। কিন্তু সেই প্রতিশ্রুতির ধারেকাছে পৌঁছতে পারেনি তাঁর সরকার। আগের জমানাতেই ফুটে উঠছিল সঙ্কটের চিহ্নগুলো। দ্বিতীয় মেয়াদ শুরু হওয়ার পর বেআব্রু হয়ে পড়ে অটোমোবাইল, পোশাক–‌সহ নানা শিল্পের দুরবস্থা। ৪৫ বছরের রেকর্ড ভেঙেছে বেকারত্বের হার। মূল্যবৃদ্ধি আকাশছোঁয়া। নানা সরকারি পরিসংখ্যানেই ধরা পড়ছে সঙ্কটচিত্র। গত কয়েক মাসে অর্থনীতিতে গতি আনতে বেশ কতকগুলি ঘোষণা করেছে তাঁর সরকার। যার মধ্যে অন্যতম হল, কর্পোরেট করের হার কমানো এবং রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থাগুলির বেসরকারীকরণ। যদিও এতকিছুর পরেও আমজনতার গৃহস্থালির খরচে ক্রমশই টান পড়েছে। শ্লথতর হয়েছে অর্থনীতি। বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, সরকার যতই চেষ্টা করুক নোট বাতিল এবং জিএসটি ব্যবস্থার ধাক্কা বয়ে যেতে হবে আরও দুটি বছর। 
শুক্রবারই সামনে এসেছে জুলাই–‌‌সেপ্টেম্বর ত্রৈমাসিকের মোট অভ্যন্তরীণ উৎপাদন বৃদ্ধির হিসাব। দেখা যাচ্ছে, এই তিন মাসে ভারতের অর্থনৈতিক বৃদ্ধির হার ৪.‌৫ শতাংশে নেমে এসেছে। ২০১৩–‌র পর যা সবচেয়ে কম। যা এবার রীতিমতো চাপে ফেলেছে সরকারকে। নির্মলা সীতারামন বলেছেন, ১২টি আন্তর্জাতিক কোম্পানি চীন থেকে তাদের সদর ভারতে স্থানান্তরিত করার ইচ্ছা প্রকাশ করেছে। অর্থনীতি চাঙ্গা করার লক্ষ্যে গত সেপ্টেম্বরে বিগত ২৮ বছরের রেকর্ড ভেঙে প্রতিযোগিতামূলক ‘‌কর্পোরেট ট্যাক্স’ এক ধাক্কায় ১০ শতাংশ‌ কমিয়ে ১৫ শতাংশ ঘোষণা করেছে সরকার।‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top