সংবাদ সংস্থা: বাজারে ছেঁড়াফাটা ২০০০ ও ২০০ টাকার নোট নিতে হলে সাবধান। ওই সব নোট খুব বেশি ছেঁড়া হলে পুরনো নোট বদলে পুরো টাকা ফেরত নাও পেতে পারেন। এর জেরে সইতে হবে লোকসান। ২০০০ ও ২০০ টাকার নোট বদলে সম্প্রতি স্পষ্ট নিয়ম চালু করেছে রিজার্ভ ব্যাঙ্ক। 
বাজারে চালু ২০০০ টাকার নোটের আয়তন ১০৯.৫৬ বর্গ সেন্টিমিটার। রিজার্ভ ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়ার ২০১৮ সালের (‌নোট ফেরত)‌ সংশোধনী বিধিতে বলা হয়েছে, ২০০০ টাকার নোট ছেঁড়া হলে, সবচেয়ে বড় টুকরোর মাপ হতে হবে অন্তত ৮৮ বর্গ সেন্টিমিটার। নোটের টুকরোর এই মাপ মিললে ফেরত পাওয়া যাবে ২০০০ টাকাই।  নোটের ছেঁড়া টুকরোর সর্বোচ্চ মাপ ৪৪ বর্গ সেন্টিমিটার হলে ফেরত পাওয়া যাবে অর্ধেক, ১০০০ টাকা। ২০০ টাকার নোটের ক্ষেত্রে, ছেঁড়া নোটের সবচেয়ে বড় টুকরোর মাপ ৭৮ বর্গ সেন্টিমিটার হলে ২০০ টাকাই মিলবে। আর সবচেয়ে বড় টুকরোর মাপ ৩৯ বর্গ সেন্টিমিটার হলে ফেরত পাওয়া যাবে মাত্র ১০০ টাকা। 
নোটবন্দির পর ২০১৬–র নভেম্বরে ২০০০ টাকার ও ২০১৭–র সেপ্টেম্বরে ২০০ টাকার নতুন যে নোট চালু করে রিজার্ভ ব্যাঙ্ক, সেগুলির মাপ আগে চালু থাকা নোটগুলির চেয়ে আলাদা। সেকারণে ২০০০ ও ২০০ টাকার ছেঁড়া–ফাটা নোট ফেরত নিয়ে অস্পষ্টতা ছিল। সম্প্রতি নোট বদলের নয়া বিধি সরকারি গেজেটে বিজ্ঞপ্তি হিসেবে জারি করা হয়েছে। এতে সবুজ সঙ্কেত রয়েছে অর্থ মন্ত্রকেরও। এতদিন ২০০০ টাকার নোট বদলে স্পষ্ট নীতি না থাকায়, অনেকেই ওই নোট ব্যবহারে আশঙ্কিত ছিলেন। অনেকে নতুন নোট মজুত করতেও শুরু করেন। এখন নতুন বিধি চালু হওয়ায় ২০০০ ও ২০০ টাকার ছেঁড়া নোট রিজার্ভ ব্যাঙ্কে কিংবা দেশের সর্বত্র ব্যাঙ্কের নির্দিষ্ট শাখায় বদল করা যাবে। তবে আসলের বদলে কত টাকা আপনি ফেরত পাবেন, তা নির্ভর করবে আপনার নোট কতটা ছেঁড়া তার ওপর। ‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top