তারপর তখনো বর্ষা-না-নামা-নভেম্বরের সেই প্যাচপ্যাচে বিকেলে গলাবন্ধ কালো জামার ওপর ক্যাঁটক্যাঁটে অরেঞ্জ টাই পরা এক চোখ কটা লোকটা মিহি অথচ ঘ্যাসঘ্যাসে গলায় বললো, 

-সামনের এপ্রিলের গোড়ায় ঠান্ডা পড়বে দিন দশ বারোর জন্য, সেই সময়েই ভাইরাসটা চার্জ করা হবে স্যার, আর সেটার এন্টিডোট শুধু আমাদের আর এন্ড ডি ! প্রথমে সাবকন্টিনেন্টের তিরিশ টা জায়গায় টেস্ট করা হবে, আর ট্রায়ালের স্যাম্পেল গুলো আমরা ঠিক সময়ে পৌঁছে দেবো !

শুধু আপনাদের ওষুধেই কমবে এই অসুখ !
ফুলপ্রুফ স্যার !

যেরকম কথা হয়েছিল সেরকমই পেয়ে যাবেন, আর এডিশন্যালি, সিলেক্টেড ইনভেস্টিগেটর হিসেবে আপনি মঙ্গলে একটা উইকএন্ড পাবেন স্যার, হ্যাঁ হ্যাঁ ম্যাডাম কে নিয়ে! 

একদম স্যার ! ওই মনস অলিম্পাসে ট্রেকিং ট্রিপটাই  বুক করা হবে ! গেলো বার তো আপনি গেলেনই না !

আপনি স্যার শুধু এই স্পেসটায় একটু থাম্বপ্রিন্টটা দিয়ে দিন, আর চশমা টা খুলে একটু এদিকে তাকান, ব্যাস হয়ে গেলো এগ্রিমেন্টে আপনার বায়োমেট্রিক সিগনেচার!

ব্যাস !
আর চিন্তা নেই !

ভ্যাকসিনটাও একদম রেডি তবে এখনই ছাড়া হবে না !

প্রথম তিন বছর ওষুধটা চালাবো স্যার, তার পর ভ্যাকসিনটা ! 

প্রফিটের ব্যাপার, বোঝেনই তো  ! হেঁ হেঁ হেঁ !

আর ভ্যাকসিন লঞ্চের পর কিন্তু স্যার শোওজা  শনি !

জনপ্রিয়

Back To Top