সব্যসাচী সরকার

এক)‌ কবে তোমার জিন থেকে চুরি হয়ে গেছে/‌ কবিত্ব ছাড়াও/ ‌পুরুষানুক্রমে পাওয়া একান্ত সারেগামাটুকু.‌.‌.‌
দুই)‌ দৌড়তে দৌড়তে কাঁদলে নিজেকে বৃষ্টি মনে হয়।
তিন)‌ জলের ওপর নিখিলের/ ‌ঝড়ে যাওয়া ভেসে যায় দেখে/ ‌নিঃস্ব গাছ একা বসে আছে/ ‌গোধূলি গণনাতীত/ ‌কবি কে?‌ প্রত্যেকে?‌
চার)‌ জঙ্গলে–‌জঙ্গলে অস্ত্রে ‘‌হ্যাঁ’‌ বলা কি ঠিক?‌/‌ কবি নন, কবি নন.‌.‌.‌ সাচ্চা দেশদ্রোহী.‌.‌.‌/ ‌এক কথায় কবির অধিক!‌
পাঁচ)‌ এই লেখা লিখে ফেলে আমি ঘুমিয়ে পড়েছিলাম/‌ অনেক অনেক রাতে ঘুম ভেঙে দেখি/‌ প্রাক্তন নদীর বুকে পানা.‌.‌.‌/‌ কবিতা বিষণ্ণ.‌.‌.‌/ ‌বলছে/ ‌এলোমেলো আস্ফালন হল,/‌  লক্ষ্য কিন্তু তোমার অজানা.‌.‌.‌
৫২ পাতার একটি কবিতার বই। সেই বইয়ে সব পৃষ্ঠায় একটা প্রতিবাদ আছে। প্রতিবাদ অর্থে আমরা চোখ মেলে দেখা জগতে প্রতিবাদ বলতে যা যা বুঝি, তার অধিক। আবার প্রতিবাদ মানে বলাও। বলা মানে শোনা। শোনা মানে শোনানোও। তাহলে— প্রতিবাদ, বলা, শোনা, শোনানো। এই চার উপাদানে বইটি রচিত হয়েছে— এক মহাকাব্যিক আধারে। মহাকাব্যিক শব্দটি সচেতনভাবেই লেখা হল। কারণ, মহাকাব্য লেখা কখনও শেষ হয়ে যায় না। প্রতি যুগে, প্রতি দশকেই তা ভিন্ন ভিন্ন বৃত্তে লেখা হয়। ধরা যাক, বিপন্ন শব্দটি কি সম্পূর্ণ মহাকাব্য নয়!‌
বিপন্ন যখন লেখা হয়, তার সঙ্গেই ছায়ার মতো অবশ্যম্ভাবী মিশে থাকে আশাবাদ। তার অর্থ— আশাবাদ মানুষকে জাগিয়ে রাখে। বিপন্নকে সাহস দেয়। এই সাহস থেকেই লেখা হয় ওপরে যে পাঁচটি ভিন্ন ভিন্ন কবিতার লাইন তুলে দেওয়া হল।
বিভাস দীর্ঘদিন ধরেই লেখেন। তাঁর লেখার বৈশিষ্ট্য বাক–‌চাতুর্য বা কাব্যদেহ নির্মাণের জন্য অযথা চালাকি কখনই করেন না। তিনি সদর্থে দৃশ্যমান জগতের এক ধারাভাষ্যকার। তিনি যেন গ্রাম, শহর, মফস্‌সল, এমনকী মানুষের মনের ভেতরে থাকা সদর–‌মফস্‌সলের দরজাগুলো টোকা দিয়ে দিয়ে খুলে দেন। তাতে এক ধরনের আলো ছড়িয়ে পড়ে। সেই আলোর নাম কবিতা। এটি তাঁর চতুর্দশ কাব্যগ্রন্থ। ঘটনাচক্রে তাঁর অনেকগুলি বই আমার পড়া। অনেক কবিতাও। সেক্ষেত্রে প্রতিবারই অত্যন্ত স্থির হয়ে বিভাসের আত্মকথনের বাঁক লক্ষ্য করি। প্রতিবারই মনে হয়, বিভাসের লেখা ক্রমশ উত্তীর্ণ হতে হতে এক মহাকাশের দিকে চলেছে। এবং পাঠককেও নিয়ে চলেছে।
পুনশ্চ:‌ বিভাস শহর থেকে দূরে থাকেন। দূর থেকে শহরে আসেন। এই দূরত্ব তাঁর লেখায় বহু দৃশ্যের জন্ম দিয়েছে। সচরাচর বিভাস চেষ্টা করেন না কবিতাকে জনপ্রিয়, স্লোগান–‌নির্ভর করতে। বিভাসের চেষ্টা থাকে, কবিতায় যেন সরাসরি পাঠকের সঙ্গেই অক্ষরের যোগাযোগ তৈরি  হয়। এই যোগাযোগ করিয়ে দেওয়ার কাজটি বিভাসের কাছে খুব সহজ। মাঝে মাঝে বিভাসের কবিতার সঙ্গে যাতায়াত করতে গিয়ে একটু ভীত হয়ে পড়ি বইকি!‌‌‌‌ ■
এই তো আমার কাজ • বিভাস রায়চৌধুরী
কবিতা আশ্রম •‌ ৩০০ টাকা

জনপ্রিয়

Back To Top