আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ বাড়ি থেকে স্কুল গিয়ে এবং ফিরতে প্রতিদিন সাইকেলে ২৪ কিলোমিটার পাড়ি দিতে হত। তারপরও ১০ শ্রেণির বোর্ডের পরীক্ষায় ৯৮.‌৭৫ শতাংশ নম্বর পেয়ে স্কুল, পরিবার সহ সারা গ্রামকেই চমকে দিয়েছে ১৫ বছরের রোশনি ভাদোরিয়া। অঙ্কে পুরো ১০০ নম্বর পেয়েছে সে।
মধ্য প্রদেশের ভিন্দ জেলার চম্বল উপত্যকার আজনোল গ্রামের বাসিন্দা রোশনি। এর আগে অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত অন্য একটি স্কুলে পড়ত সে। সেখানে স্কুলবাস ছিল। নবম শ্রেণি থেকে মেহগাঁও–এর সরকারি গালর্স স্কুলে তাকে ভর্তি করেন অভিভাবকরা। স্কুলটি আজনোল থেকে ১২ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। বর্ষা বা ভারী বৃষ্টি হলেই গ্রামের রাস্তা প্লাবিত হয়ে যায়। সেসময় স্কুলের কাছাকাছি আত্মীয়দের বাড়িতে থাকতে হত, জানাল রোশনি। নিজের সাফল্যের জন্য স্কুলের শিক্ষকশিক্ষিকাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছে রোশনি। স্কুলের প্রধানশিক্ষক হরিশ্চন্দ্র শর্মাও ছাত্রীর এই অভাবনীয় সাফল্যে গর্বিত। বড় হয়ে আইএএস পাস করে জেলাশাসক হতে চায় রোশনি। গ্রামজীবনের সমস্যার সঙ্গে যুঝতে থাকা কিশোরীর স্বপ্ন, জেলাশাসক হয়ে সমাজকল্যাণের কাজে ব্রতী হওয়ার। তাই একাদশ শ্রেণিতে অঙ্ককেই প্রধান বিষয় রাখতে চায় সে।
বাবা পুরুষোত্তম ভাদোরিয়া পেশায় কৃষক। মাত্র চার বিঘা জমিতে কৃষিকাজ করে তিন ছেলেমেয়েকে পড়ানো তাঁর পক্ষে আর্থিক দিক থেকে কষ্টকর হলেও দমেননি ওই কৃষক। মেয়ের সাফল্যে গর্বিত বাবা বললেন, দ্বাদশ শ্রেণইতে পড়া তাঁর বড় ছেলে এবং চতুর্থ শ্রেণিতা পড়া ছোট ছেলেও পড়াশোনায় ভালো। কিন্তু রোশনির মেধা বাকি দুভাইকে ছাপিয়ে গিয়েছে। এবার মেয়ের যাতায়াতের সুবিধার জন্য অন্য কোনও ব্যবস্থার চেষ্টা করবেন বলে জানালেন পুরুষোত্তম।   

জনপ্রিয়

Back To Top